Menu

এ যেন এক অন্য রকম যুদ্ধ

বদিউদ-জ্জামান মুকুলঃ বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার মহিষাবাড়ী এলাকার কৃষক নায়েব আলীর নিজস্ব কোন ফসলী জমি নেই। তাইতো পাড়া প্রতিবেশির জমি বর্গা নিয়ে চাষাবাদ করে প্রকৃতির সাথে লড়াই সংগ্রাম করে সংসার নামের ঘানি টেনে চলেছে ওই কৃষক। এমনকি তার হাল চাষের জন্য গোয়াল ঘরে কোন গরু নেই। তাই সে গরুর পরিবর্তে শিশু সন্তানদেরকে সাথে নিয়ে লাঙল টেনে জমি চাষ করে ৫ সদস্যের মুখে অন্ন তুলে দিচ্ছে।

বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থিত বালুয়া ইউনিয়নের মহিষাবাড়ী গ্রাম। ওই গ্রামে প্রায় আড়াই হাজার মানুষের বসবাস। বসবাসকারীদের অধিকাংশ কৃষি কাজের সাথে জড়িত। যাদের প্রত্যেকেই প্রকৃতির সাথে প্রতিনিয়ত লড়াই সংগ্রাম করে টিকে থাকতে হয়। তাদেরই একজন কৃষক নায়েব আলী। তার বাড়ির মাত্র ৩ শতক জায়গা জমি ছাড়া ফসলী কোন জমি নেই। তবে তিনি পরিশ্রমী। ছোট বেলা থেকেই কৃষক নায়েব আলী অক্লান্ত পরিশ্রম করে ৫ সদস্যের সংসার নামের ঘানি টেনে চলছেন। এমনকি নিজের নেওয়া বর্গা জমি চাষাবাদের পাশাপাশি অন্যের জমিতে শ্রমিকের কাজ করে পরিবারের সদস্যদের মুখে দু’বেলা দু’মুঠো অন্ন তুলে দিতে অবিরাম পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

গতকাল মঙ্গলবার সরজমিনে ওই এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে কৃষক নায়েব আলী তার দুই পুত্র সন্তান রুহান ও আশিককে সাথে নিয়ে বর্গা জমিতে গরু ছাড়াই হালচাষ করতে দেখা গেছে। কথা হয় কৃষক নায়েব আলীর সাথে।

 

তিনি জানান, চাল কেনার টাকা নেই। গরু কিনমু কেমনে। তাইতো শিশু সন্তানদের সাথে নিয়ে অতি কষ্টে দিনের পর দিন অন্যের জমিতে (বর্গা নেয়া জমিতে) ফসল ফলিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছি। এমনকি তিনি আরও জানান, ছেলেরা স্কুলে লেখাপড়া করলেও তাদের চাহিদা মতো খেতে দিতে পারিনা। এমনকি অভাব অনটনের সংসারে তার বৃদ্ধ মাতা ছমিরন বেওয়ার ইচ্ছামতো খাবার মুখে তুলে দিতে পারে না ওই কৃষক।

কৃষক নায়েব আলী আরও জানান, কোন জনপ্রতিনিধি তার দিকে ফিরে তাকায় না। এমনকি সরকারী কোন সাহায্য সহযোগিতার হাত বাড়ায় না তার প্রতি। ৫ সদস্যের সংসার চলে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। সরকারী সাহায্য সহযোগিতা পেলে তিনি এক জোড়া হালের গরু (বলদ) কিনে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে রঙিন স্বপ্ন দেখতে চায়।

 

এ বিষয়ে স্থানীয় বালুয়া ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাষক রুহুল আমিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তার ইউনিয়নে প্রায় ৪৫ হাজার মানুষের বসবাস। প্রত্যেক পরিবারের খোঁজ খবর রাখা তার পক্ষে সম্ভব হয় না। তাইতো নায়েব আলীর অভাব অনটনের সংসারের প্রতি দৃষ্টি রাখা সম্ভব হয়নি।

No comments

Leave a Reply

two × 4 =

সর্বশেষ সংবাদ