Menu

কাহালুতে আটক শিক্ষক ও গৃহশিক্ষিকা জিম্মানামায় পেল ছাড়া

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (কাহালু প্রতিনিধি): বৃহস্পতিবার রাতে বড়মহর গ্রামের লোকজন সন্দেহ মূলকভাবে মুরইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আঃ বারী ও তার ছেলেদের প্রাইভেট পড়ানো গৃহশিক্ষিকাকে আটক করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গেলে দুজনকেই গ্রামবাসী পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। আঃ বারী জানান, আমার ছেলেদের পড়ানোর পর গৃহশিক্ষিকা মার্কেটে যায়। রাত হওয়ার কারনে আমি তাকে মটরসাইকেলে নিয়ে বাড়িতে পৌছে দেওয়ার জন্য যায়। তবে গৃহশিক্ষিকার কথায় প্রথমে তার খালার বাড়ি। সেখানে কারো সাড়া না পেয়ে নানীর বাড়িতে পৌছে দেওয়ার সময় পথে বিপত্তি ঘটে। বখাটেরা আমাকে আটক করে মটরসাইকেলের চাবী, মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। আমি বড়মহর গ্রামে সহযোগীতার জন্য গেলে গ্রামবাসীর ধাওয়ায় বখাটেরা পালিয়ে যায়। এরপর পুলিশ আমাদের দুজনকেই থানায় নিয়ে আসে। গৃহশিক্ষিকার এক চাচা জানান, কয়েকজন বখাটে ব্লাকমেইন করে টাকা আদায়ের জন্য মিথ্যা অনৈতিক ঘটনার কথা বলে এই ঘটনা ঘটিয়েছে। কাহালু থানার এস আই ডেভিড হিমাদ্রী বর্মা জানান, তাদের দুজনকে গ্রামবাসী আটক করে। তারা মেইন রাস্তায় না গিয়ে উল্টো পথে যাওয়ায় গ্রামবাসীর সন্দেহ তাদের দুজনের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্ক আছে। প্রধান শিক্ষক আঃ বারীকে সহকারি শিক্ষা অফিসার শামিম ইকবালের জিম্মানামায় শর্ত সাপেক্ষে ছেড়ে দেওয়া হয়। আর মেয়েটিকে তার চাচার জিম্মায় দেওয়া হয়েছে।

No comments

Leave a Reply

5 + 9 =

সর্বশেষ সংবাদ