Menu

কাহালুতে চোর সন্দেহে যুবককে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন

কাহালু (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার কাহালু উপজেলার অঘোর মালঞ্চা গ্রামে চোর সন্দেহে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় আতাউর রহমান শিরু (২৪) নামের এক যুবক নির্যাতন করার খবর পাওয়া গেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে পুলিশ ওই যুবককে গুরুত্বর জখম অবস্থায়, প্রবাসী মিল্টনের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে কাহালু হাসপাতালে ভর্তি করেন।

নির্যাতনের শিকার শিরু অঘোর মালঞ্চা গ্রামের মোঃ মজনু মিয়ার পুত্র। মজনু, সুমন, গ্রাম পুলিশ মোস্তফাসহ ওই গ্রামের অনেকে জানান, ঘটনার রাতে শিরু বাড়িতে ঘুমিয়ে ছিলো। রাত তিনটার দিকে একই গ্রামের মিল্টনের স্ত্রী সেলিনা আক্তারসহ ৭/৮ জন নারী পুরুষ মিলে শিরুকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে নিয়ে যায় তাদের বাড়িতে। সেখানে গ্যাস সিলিন্ডার চুরির অভিযোগ তুলে শিরুর হাত-পা বেঁধে মারপিট কয়েকজন মিলে।

গ্যাস সিলিন্ডার চুরির সাথে জড়িতদের নাম বলতে না পারায় শিরুর হাতের আগুলে প্রথমে সুচ ফোটানো হয় এবং বাম পায়ে হাতুড়ি দিয়ে পেরেক মারা হয়। শিরুর দু-হাতে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে ফুলা জখম করা হয়। অপদিকে সেলিনা, মুন্নী, আছিয়া, সুমন জানান শিরুকে তারা মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করেননি।

ঘটনার রাতে শিরুসহ তিনজন মিলে বাড়িতে এসে গ্যাস সিলিন্ডার চুরি করে নিয়ে যায়। আমরা টের পেয়ে শিরুকে ধরে এনে সামান্য মারধর করে তার কাছ থেকে জানবার চেষ্টা করেছি তার সাথে আর দুজন কে ছিলো। কাহালু হাসপাতাল সুত্রে জানা যায় জখমীর পায়ে চিকন কিছু দিয়ে অনেক গভীর পর্যন্ত জখম করা হয়েছে। এছাড়াও তার দু-হাত ও শরীরের বিভন্ন স্থানে ফুলা জখম রয়েছে।

কাহালু থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আমবার হোসেন জানান, শিরুর বিরুদ্ধে খারাপ রিপোট আছে। তবে এভাবে তাকে নির্যাতন করা ঠিক হয়নি। আমরা তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেছি এবং অভিযোগ নেওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

No comments

Leave a Reply

thirteen + 7 =

সর্বশেষ সংবাদ