Menu

কাহালুতে যুবলীগ নেতা রাজিবের উপজেলা নির্বাচনের প্রস্ততি

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (কাহালু প্রতিনিধি): বিএনপি-জামায়াত অধ্যষিত বগুড়ার কাহালু উপজেলায় রাজপথের সাহসী ও পরিশ্রমী যুবলীগ নেতা মেহেদী হাসান রাজিব উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে লবিং করার পাশাপাশি নির্বাচনেরও প্রস্ততি নিয়ে রেখেছেন। রাজিব ১৯৮৯ সালে কাহালু উপজেলা সদরের এক সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। খোজ-খবর নিয়ে দেখা গেছে তিনি একজন সফল ঠিকাদারও বটে। গতকাল শনিবার এক সাক্ষাতকারে রাজিব নির্বাচনের প্রস্ততির বিষয়, তার রাজনৈতিক জীবন ও পারিবারিক জীবনের নানা দিক এই প্রতিবেদকের কাছে তুলে ধরেন। তিনি জানান, আমার বাপ-চাচাসহ পরিবারের সকলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী। আমাদের পরিবারের অধিকাংশ সদস্যই সক্রিয়ভাবে আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের সাথে জড়িত। আমার বড় আব্বা আব্দুল জোব্বার আওয়ামীলীগের সকল কর্মকান্ডে নিজেকে জড়িয়ে রাখেন সব সময়। তিনি একবার কাহালু সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে সততার সাথে জনসাধারনের সেবা করেছেন। আমার বাবা ইনছান আলী অসুস্থ্যতার কারনে আগের মতো সাংগঠনিক কর্মকান্ডে সময় দিতে না পারলেও আওয়ামীলীগের সকল সভা-সমাবেশে গিয়ে হাজির হন। আমার চাচা সহকারি অধ্যাপক পিএম বেলাল হোসেন দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে নিষ্ঠার সাথে উপজেলা যুবলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি পর পর দুবার বিপুল ভোটে কাহালু সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। আমাদের পরিবারের সকলের মতো আমিও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী হয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি পূর্ণ আস্থা রেখে ২০০৪ সালে স্কুল জীবন থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে নিজেকে জড়িয়ে রাখি। ২০০৫ সালে কাহালু ডিগ্রি মহাবিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর ঐ বছরই কলেজ ছাত্রলীগের সম্মেলনে আমি সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হই। কলেজ জীবনে ছাত্রলীগের সকল কর্মসূচীতে আমি বলিষ্ঠ ভুমিকা রাখি। যারফলে বিএনপি-জামায়াত শাসনের শেষ সময় পর্যন্ত শুধু রাজনৈতিক কারনে বিএনপি-জামায়াতের লোকজন আমার বিরুদ্ধে ১১ টি মামলা করে। রাজনীতিতে সাহসী ভুমিকা ও আমার পরিশ্রমের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০১১ সালে আমাকে কাহালু পৌর যুবলীগের আহবায়ক করা হয়। ২০১৫ সালে আমি উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব নিয়ে যুবলীগকে সু-সংগঠিত করতে অদ্যবধি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে যে, সকল উন্নয়ন হয়েছে সেগুলো উপজেলা প্রতিটি মানুষকে অবগত করতে আমি আন্তরিকভাবে কাজ করছি। এছাড়াও বিগত ১০ বছর বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসীদের সরকার বিরোধী কর্মকান্ড রুখে দিতে আমি আমার কর্মি-সমর্থক নিয়ে রাজপথে সাহসী ভুমিকা পালন করেছি। রাজনৈতিক কর্মকান্ডে আমার পরিশ্রমের কথা বিবেচনা করলে আমার বিশ্বাস এখানে উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে আমি দলীয় মনোনয়ন পাবো।

No comments

Leave a Reply

seventeen + 13 =

সর্বশেষ সংবাদ