Menu

কাহালুতে সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে আন্তরিক ইউএনও মাছুদুর রহমান

কাহালু (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ সরকারি বিভিন্ন সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সততা ও নিষ্ঠার সাথে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছেন বগুড়ার কাহালু উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাছুদুর রহমান।
২০১৯ সালের ২১ মে অত্র উপজেলায় যোগদানের পর থেকে উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের সেবা যাতে সব শ্রেণীপেশার মানুষ সহজে পান তার জন্য তিনি প্রথমে নানামুখী প্রদক্ষেপ নেন। তার প্রাথমিক প্রদক্ষেপের মধ্যে ছিলো সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারীদের ৯ টার মধ্যে নিজ নিজ দপ্তরে হাজির হতে হবে।
সরকারি অফিসে সেবা নিতে আসা জনসাধারণ,জনপ্রতিনিধিসহ সকল শ্রেণীপেশার মানুষ কোনোভাবে যাতে হয়রানীর শিকার না হন তার জন্য তিনি উপজেলার সকল কর্মকর্তা/কর্মচারীকে কঠোরভাবে নির্দেশনা দেন। উপজেলার সরকারি সকল দপ্তরে যাতে সরকারি সিদ্ধান্ত সমুহ যথাযথভাবে নিয়মতান্ত্রিকভাবে পালন করা হয়, সেই দিকে নজরদারীও রাখা হয়। বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড সঠিকভাবে বাস্তবায়নে দেওয়া হয় সু-দৃষ্টি।
কৃষকদের নানা ধরনের সমস্যা দুরীকরণে নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা। সরকারি খাদ্য গুদামে প্রকৃত কৃষকের ধান উত্তোলন নিশ্চিত করতে ইউএনও,র নির্দেশে এখানে লটারীর মাধ্যমে কৃষকের তালিকা করা হয়। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতার কারণে এখানে আমন চাষিরা নানামুখী সমস্যায় পড়তো। কৃষকের এই সমস্যা চিহিৃত করে ইউএনও বিভিন্ন রাস্তার পাশে পানি নিস্কাশনের নয়নজুলির উপর থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে তা খননের মাধ্যমে পানি নিস্কাশনের পথ পরিস্কার করেন।
এদিকে বিভিন্ন স্থানে কতিপয় মানুষের দখলে রাখা সরকারি খাস জায়গা উদ্ধারে অতিতে কোনো কার্যকরি প্রদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। ইউএনও মোঃ মাছুদুর রহমান সাহসিকতার সাথে পাইকড়, কালাই, মুরইল ইউনিয়নের বেশ কিছু সরকারি খাস জমি দখল মুক্ত করেছেন। যারফলে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রæতি অনুযায়ি উদ্ধার হওয়ায় সরকারি খাস জায়গার উপর গৃহহীনদের জন্য গৃহনির্মাণ কাজ নানা প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে।
এদিকে নানা জটিলতায় অতিতে এখানে শতভাগ হাট-বাজার ও সরকারি খাস পুকুর ইজারা দেওয়া সম্ভব না হলেও বর্তমান ইউএনও’র মাত্র দেড় বছরের কর্মকালে প্রায় শতভাগ হাট-বাজার ও পুকুর ইজারা প্রদান করে সরকারি রাজস্ব আয় অনেকাংশে বৃদ্ধি করা হয়েছে। কিছু টাউট-বাটপার অনৈতিকভাবে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের নাম ব্যবহার করে বছরের পর বছর সরকারি খাস পুকুর ভোগ-দখলে রাখলেও তাদেরকেও শক্ত হাতে দমন করা হচ্ছে।
বিশেষ করে উপজেলার মানুষকে করোনা মুক্ত রাখতে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকতা ডাঃ মোহাম্মদ যাকারিয়া রানা, কাহালু থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জিয়া লতিফুল ইসলাম ও কাহালু প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের নিয়ে করোনা যুদ্ধে সামনের সাড়িতে ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাছুদুর রহমান। করোনায় মৃত ব্যক্তির সৎকারে করোনা আতঙ্কে অনেকে এগিয়ে না এলেও ইউএনও নিজে উপস্থিত থেকে মৃত ব্যক্তির দাফন ও সৎকার করেছেন।
করোনার অজুহাতে বাজার পরিস্থিতি অনেকটা অস্বাভাবিক হলে তিনি প্রতিনিয়ত ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানের মাধ্যমে বাজার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করেছেন। ভেজাল বিরোধী, পরিবেশ দুষণরোধ, খাদ্য মজুদ বিরোধী অভিযানের ফলে অত্র উপজেলার সকল শ্রেণীপেশার মানুষ অনেক উপকৃত হয়েছেন।
উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি প্রভাষক মাকসুদুর রহমান জানান, বর্তমান ইউএনও নিয়ন-নীতি ও সরকারি সিদ্ধান্তে অটল থাকায় এখানে ভালো মানুষগুলো উপকৃত হচ্ছে। আর যারা সব-সময় অনৈতিক সুযোগ-সুবিধা, সরকারি খাস জমি অবৈধভাবে ভোগ-দখলে রাখা, ভুমি দস্যু ও বালু দস্যুসহ নানা অন্যায় কাজে যারা জড়িত তাদের বেশী সমস্যা। ভালো মানুষের কোন সমস্য হচ্ছে এই ইউএনও’র আমলে।
উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি সিনিয়ার সাংবাদিক জানান, আমার জীবনে এই ইউএনও’র মত সৎ মানুষ খুব কমই দেখেছি। জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ অত্র উপজেলার বেশীরভাগ মানুষ এক বাক্যেই বলে থাকেন বর্তমান ইউএনও মোঃ মাছুদুর রহমান খুবই সৎ।
সম্প্রতি স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাছুদুর রহমান বলেন উপজেলার সকল অসঙ্গতি দুরীকরণে ও সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সাংবাদিকসহ সকল মানুষের এগিয়ে আসা উচিত।

No comments

Leave a Reply

16 − 12 =

সর্বশেষ সংবাদ