Menu

কাহালুতে স্বেচ্ছাসেবকলীগের সম্মেলনে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়াঃ পুলিশের ফাঁকা গুলি

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (মুনসুর রহমান তানসেন, কাহালু প্রতিনিধি): আজ শনিবার সন্ধ্যায় কাহালু পৌরমঞ্চে উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের সম্মেলনের শেষ মুহুর্তে দু-পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইট-পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষ এড়াতে পুলিশ কয়েক রাইন্ড গুলি ছুঁড়ে উত্তেজিত নেতাকর্মি ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। উত্তেজিত নেতাকর্মিদের ছুঁড়া ইট-পাটকেলে কাহালু থানার এ এস আই মাসুদসহ কয়েকজন নেতাকর্মি আহত হয়েছেন।

প্রত্যেক্ষদর্শী জানান, সম্মেলন শেষে কমিটি ঘোষনা না করায় স্থানীয় নেতাকর্মিরা মঞ্চের সামনে চেয়ার ভাংচুর করে।

এদিকে সাবেক বিএনপি নেতা আলহাজ্ব আঃ রহিমকে উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের নতুন কমিটিতে রাখা হচ্ছে এই ধরনের খবরে স্থানীয় নেতাকর্মিরা আরো উত্তেজিত হয়ে রেল লাইন থেকে পৌরমঞ্চে ও ভিতরে অবস্থানরত নেতাকর্মিদের লক্ষ করে বৃষ্টির মত ছুঁড়ে ইটপাটকেল।

উত্তেজিত নেতাকর্মিদের ছুড়া ইটপাটকেলের আঘাত এড়াতে পৌরসভার ভিতর থাকা নেতাকর্মিরা দিকবিদিক ছুটাছুটি করে।

এসময় বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছা সেবকলীগ নেতৃবৃন্দ ও জেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের নেতৃবৃন্দকে পুলিশ প্রটেকশন দেন।

উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের আহবায়ক সাইফুল ইসলাম জানান, এঘটনার জন্য উপজেলা যুবলীগের সভাপতি পিএম বেলাল দায়ী।

উপজেলা যুবলীগের সভাপতি পিএম বেলাল হোসেন বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন স্বেচ্ছা সেবকলীগের সম্মেলনে দুগ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। আমি নিজেও তাদের ছুঁড়া পাথরে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছি।

কাহালু থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান, অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে কয়েক রাইন্ড ফাঁকা গুলি করে উত্তেজিত নেতাকর্মিদের ছত্রভঙ্গ করা হয়েছে। এখন সার্বিক পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।

No comments

Leave a Reply

3 × 2 =

সর্বশেষ সংবাদ