Menu

কাহালুর কাজল উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (কাহালু প্রতিনিধি): আসন্ন কাহালু উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মোঃ মোশফিকুর রহমান কাজল গণসংযোগ ও ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময়ের জন্য ছুটে বেড়াচ্ছেন উপজেলার এক প্রান্তর থেকে আরেক প্রান্তর। কাহালু উপজেলার শিলকঁওড় গ্রামে এক সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন তিনি। কাজলের পিতা মরহুম আফতাব মাস্টার ছিলেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন পরিক্ষিত সৈনিক। আফতাব মাস্টার উপজেলা আওয়ামীলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে তার জীবনের শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত অত্র উপজেলায় আওয়ামীলীগকে সু-সংগঠিত করার কাজে নিয়োজিত ছিলেন। সম্প্রতি এক সাক্ষাতকারে তার রাজনৈতিক জীবন ও পারিবারিক জীবনের বিশ্বদ বিবরন তুলে ধরেন। নারহট্ট বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র হিসেব অধ্যায়নরত অবস্থায় স্কুল কমিটির ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পান। ১৯৮৯ সালে এসএসসি পাশ করে কাহালু ডিগ্রী কলেজ ভর্তি হওয়ার পর সেখানেও কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পান। কলেজে অধ্যায়নরত সময়ে তিনি ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগ থেকে এজিএস পদে নির্বাচন করেছেন। ১৯৯১-১৯৯২ সাল পর্যন্ত তিনি কাহালু থানা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক এর দায়িত্ব পালন করেন । যারফলে রাজনৈতিক মামলায় তাকে জড়ানো হয়েছিলো। পরবর্তীতে তিনি রাস্ট্র বিজ্ঞান নিয়ে এম এস এস পাশ করেন। পড়াশুনা শেষ করে নিজের পেশাগত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি তিনি আবারও সক্রিয় ভাবে রাজনীতি শুরু করেন। ১৯৯৬ এর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী শহিদুল আলম দুদুর পক্ষে জোড়ালোভাবে প্রচার চালান। স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন, খালেদা বিরোধী আন্দোলন ও সর্বশেষ বিএনপি-জামায়াত সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নেন। ২০০৫ সালে উপজেলা আওয়ামীলীগের কাউন্সিলে তিনি যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হন। তিনি যুগ্ন সম্পাদকের দায়িত্ব পাওয়ার পর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সাংগঠনিক কাজে ঘুরিয়ে বেরিয়েছেন। ২০০৯ সালের ২১ জানুয়ারি উপজেলা নির্বাচনে কয়েক জন হেভিওয়েট প্রার্থীর সাথে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতা করেন। সেই নির্বাচনে তিনি ভোট পেয়েছিলেন ২৩ হাজার ৭২০ ভোট । পরবর্তী উপজেলা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন তিনি না পেলেও দলীয় প্রার্থী আলহাজ্ব হেলাল উদ্দিন কবিরাজের পক্ষে সক্রিয়ভাবে কাজ করেছেন। ২০১৪ সালের শুরুতে উপজেলা আওয়ামীলীগের কাউন্সিল হলেও এখনো পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি। যারফলে এখানে সভাপতি/সম্পাদক ছাড়া কারো কোনো পদ নাই। বর্তমানে অনেকের মতো আমারও একই দশা। তবে জননেত্রী শেখ হাসিনার সকল উন্নয়ন মুলুক কাজ তুলে ধরার জন্য উপজেলা বিভিন্ন এলাকায় গিয়েছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সকল সফলতা সাধারন মানুষের কাছে তুলে ধরছি। তিনি জানান, আওয়ামীলীগের একজন পরিক্ষিত কর্মী হিসেবে শতভাগ আশ্বাবাদী দলীয় মনোনয়ন আমি পাবো।

No comments

Leave a Reply

5 × three =

সর্বশেষ সংবাদ