Menu

কাহালুর নাগর নদী বালু দস্যুদের দখলেঃ ফসলী জমি-বসত-বাড়ির ক্ষতির আশঙ্কা

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (মুনসুর রহমান তানসেন, কাহালু বগুড়া): কাহালু, শিবগঞ্জ ও দুপচাঁচিয়া উপজেলার সীমান্ত এলাকা দিয়ে বয়ে যাওয়া বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতি বিজরীত সেই ছোট নাগর নদী এখন বালু মাটি ও দস্যুদের দখলে।

প্রতিদিন অবৈধভাবে নদী থেকে মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন ও ট্রাকে ট্রাকে মাটি কতিপয় অসৎ ব্যক্তি কেটে নিয়ে যাওয়ায় নদীর আশে-পাশের বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ ভূমিধসে বসত-বাড়ি ও ফসলী জমির ক্ষতি আশঙ্কায় আতঙ্কে রয়েছেন।

যারা নদী থেকে বালু উত্তোলন ও মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে তারা প্রভাবশালী হওয়ায় নদীর আশে-পাশের নিরীহ লোকজন প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছেনা। নাম না প্রকাশের শর্তে একাধিক ব্যক্তি জানিয়েছেন কালাই, বীরকেদার ও দুর্গাপুর ইউনিয়নের সীমানার মধ্যে বেশ কয়েকটি পয়েন্টে বালু উত্তোলন ও মাটিকাটার মহোৎসব চলছে।

ফকিপাড়া, চাকলা, ফুলতলা, থিয়টপাড়া, ঝিনাই, টিটিয়া, মদনাই, কাশ্মিমালা, নিশিন্দারা, তালোড়া শশ্মান ও পলীপাড়াসহ বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে বালু উত্তোলন ও ট্রাকে ট্রাকে মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে চিহিৃত মাটি ও বালু দস্যুরা।

নদীর মাটিকাটা ও বালু উত্তোলনের বিষয়টি আড়াল করে করতে কেউ কেউ আবার ফসলী জমি ক্রয় করে সেখান থেকে গভীর করে মাটি কাটছে। যারফলে অন্যের ফসলী জমির অনেকটা ক্ষতিও হচ্ছে। অনেকের মতে এই মাটি ও বালু দস্যুদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা না নিলে নাগর নদীর আশে-পাশের প্রায় ২০/২৫ গ্রামের মানুষ বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়তে পারে।

গতকাল ফকিরপাড়া পয়েন্টে গিয়ে বালুর লেবারদের কাছ থেকে জানা গেছে সেখানে বালু উত্তোলন করছে মেজবা, শাহাজানসহ বেশ কয়েকজন। এভাবে বিভিন্ন পয়েন্টে মাটিকাটা ও বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত প্রায় ১০/১২ জন প্রভাবশালীর নাম পাওয়া গেছে।

বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত সাবেক ইউপি মেম্বার শাহাজান জানান, রাস্তার কাজ হওয়ার কারনে আমাদের পয়েন্টে বালু উত্তোলন বন্ধ আছে। বালু ব্যবসায়ী হাসু জানান, অনেকে জমি কিনে মাটি কাটছে। আমাদের পয়েন্টে এখন বালু উত্তোলন বন্ধ আছে।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাছুদুর রহমানের সাথে কথা বলা হলে তিনি জানান, আমি অভিযানে গিয়েছিলাম কয়েকটি পয়েন্টে। কিন্ত পয়েন্টে পৌছার আগেই অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারীরা পালিয়ে গেছে। তিনি আরো জানান, নাগর নদী রক্ষা কমিটি করা প্রয়োজন। আগামী আইন-শৃঙ্খলা মাসিক সভায় এব্যাপারে গুরুত্বপুর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

No comments

Leave a Reply

15 + 18 =

সর্বশেষ সংবাদ