Menu

কাহালু উপজেলা পরিষদ নির্বাচনঃ প্রার্থীদের প্রতিশ্র“তি উন্নয়নে গ্রাম হবে শহর সরকারি দপ্তরে থাকবেনা অনিয়ম ও দুর্নীতি

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (কাহালু প্রতিনিধি): আগামী ১৮ মার্চ কাহালু উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা কোমর বেধেঁ রয়েছেন নির্বাচনী মাঠে। সকল প্রার্থীরাই তাদের নির্বাচনী সভা-সমাবেশে প্রতিশ্র“তি দিচ্ছেন উন্নয়নের ফুলঝুঁড়ি। এখানে বিশেষ করে চেয়ারম্যান পদে অন্য কোনো দলের প্রার্থী নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দিতায় নেই। আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীর সাথে ভোটযুদ্ধে রয়েছেন আওয়ামীলীগ ঘরনার আরো দুজন বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী। এখানে আওয়ামীলীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতিক নিয়ে লড়ছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল মান্নান। আর বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মটরসাইকেল প্রতিক নিয়ে লড়ছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ন সম্পাদক মোঃ মোশফিকুর রহমান কাজল। আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে আনারস প্রতিক নিয়ে লড়ছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব হেলাল উদ্দিন কবিরাজের একমাত্র ছেলে জেলা ছাত্রলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক আল হাসিবুল হাসান সুরুজ। এই তিনজন প্রাথীই ভোটারদেরকে নানা ধরনের প্রতিশ্র“তি দিয়ে বেড়াচ্ছেন তারা নির্বাচিত হলে কি কি কাজ করবেন। তবে সকলেরই মুখে একই ধরনের বুলি শোনা যাচ্ছে। বর্তমান সরকারের যে, উন্নয়ন পরিকল্পনা রয়েছে সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের প্রতিশ্র“তিই তারা দিচ্ছেন। গতকাল সোমবার এক সাক্ষাতকারে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ আব্দুল মান্নান জানান, জনগনের ভোটে আমি নির্বাচিত হতে পারলে অত্র উপজেলাবাসীর আশা আকাঙ্খার প্রতি ফলন ঘটাবো। সন্ত্রাস, মাদক, দুর্নীতিসহ সমাজের সকল প্রকার অসঙ্গতি দুর করতে আন্তরিকভাবে কাজ করবো। উপজেলাবাসীর উন্নয়নে ও বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জল করতে আমি বড় ধরনের ভুমিকা রাখবো। অপরদিকে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোশফিকুর রহমান কাজল এক সাক্ষাতকারে জানান, আমি নির্বাচিত হলে জনগনকে জননেত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া প্রতিশ্র“তি বাস্তবায়নের উপর আগে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করবো। গ্রামকে শহরে রূপান্তর করতে ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে উপজেলার সকল শ্রেণীপেশার মানুষকে নিয়ে পরিকল্পনা মাফিক কাজ করবো। উপজেলার সরকারি বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠানে সচ্ছতা ফিরে আনতে আমি সব ধরনের প্রদক্ষেপ গ্রহন করবো। এদিকে আওয়ামীলীগের আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী আল হাসিবুল হাসান সুরুজ এক সাক্ষাতকারে জানান, আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে রাস্তা-ঘাট, শিক্ষা, সামাজিক, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন সহ সর্বক্ষেত্রে আন্তিরিকতার সাথে উন্নয়ন করবো। অত্র উপজেলাকে মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে পরিকল্পিতভাবে কিছু নান্দনিক কাজ করবো। সমাজের সকল অসঙ্গতি দুর করে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় আমার সবচেয়ে বড় ধরনের ভুমিকা থাকবে। সর্বক্ষেত্রে অনিয়ম, সুদ, ঘুষ ও দুর্নীতি দুর করতে আমার বড় ধরনের একটা লড়াই থাকবে। অত্র উপজেলায় এই তিনজন চেয়ারম্যান প্রার্থী ছাড়াও ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন ও পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ জন । নির্বাচন অফিসের সর্বশেষ হিসেব অনুযায়ী অত্র উপজেলায় সর্বমোট ভোটার ১ লাখ ৭১ হাজার ৫৫১ জন।

No comments

Leave a Reply

three × 3 =

সর্বশেষ সংবাদ