Menu

গাবতলীতে কলাক্ষেত থেকে অটো ভ্যান চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (বগুড়া প্রতিনিধি): বগুড়ার গাবতলীতে কয়েকদিনে ব্যবধানে আবারও একটি খুন হয়েছে। ট্রাক চালকের পর এবার অটো ভ্যান চালক খুন হয়েছে। জমিজমা সংক্রান্ত জের ধরে সিরাজুল ইসলাম (৩৫) নামের এক অটো ভ্যান চালককে গলায় গামছা বেঁধে গলাকেটে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষরা। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টায় চৌকিদারের মাধ্যমে থানা পুলিশ সংবাদ পেয়ে উপজেলার তেলকুপি তিনমাথা মোড়ের পুর্ব পার্শে^র একটি কলাবাগান তার উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ জনকে আটক করেছে। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় স্থানীয় বিক্ষুব্ধ জনতা সন্দেহভাজন হত্যাকারীদের ঘরবাড়ী ভাংচুর এবং খড়ের পালায় আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। সিরাজুল সোনারায় ইউনিয়নের বামুনিয়া পোদ্দার পাড়া গ্রামের মৃত আমছার আলীর ছেলে।
পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গাবতলীর সোনারায় ইউনিয়নের বামুনিয়া পোদ্দার পাড়া গ্রামের মৃত আমছার আলীর ছেলে সিরাজুল ইসলাম সঙ্গে তার চাচাতো ভাই বাবু, মোকছেদ, মোকলেছার ও মোস্তাফিজারদের জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। আদালতে উভয়পক্ষের মামলাও রয়েছে। জমির এই বিরোধকে কেন্দ্র করে গত বুধবার সকালে সিরাজুলের সঙ্গে বাবু গংদের ঝগড়া হয়। ঝগড়ার একপর্যায়ে সিরাজুলকে মারার জন্য ধাওয়া করে চাচাতো ভাই বাবুরা। এ সময় সিরাজুল অটো ভ্যান নিয়ে কৌশলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। ওইদিন রাত প্রায় ৮টায় সিরাজুল বামুনিয়া বাজার থেকে কাগইলের দিকে যায়। তারপর থেকে সিরাজুল আর বাড়ী ফেরেনি। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে গ্রাম্য পুলিশসহ স্থানীয়রা কাগইল ইউনিয়নের তেলকুপি তিনমাথা মোড়ের পুর্ব পার্শে^র একটি কলাবাগানে সিরাজুলের গলা কাটা লাশ দেখতে পেয়ে থানা পুলিশকে সংবাদ দেয়। সংবাদ পেয়ে সহকারী পুলিশ সুপার (গাবতলী সার্কেল) সাবিনা ইয়াসমীন, ওসি তদন্ত জাকির হোসেন, ওসি অপারেশন আব্দুল গনিসহ সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানোর জন্য থানায় নিয়ে এসেছে। এ ঘটনায় পুলিশ ৩জনকে আটক করেছে। এরা হলো একই গ্রামের আফসার আলী মোল্লার ছেলে দুলাল (৪০), লাল মিয়া মোল্লার ছেলে মোকছেদ মোল্লা (৩৫) এবং লাল মিয়া মোল্লার জামাই সাইফুল ইসলাম (৪৫)। নৃশংস এ হত্যায় স্থানীয় বিক্ষুব্ধ জনতা বাবু ও তার ভাইদের ৮টি টিনসেট ঘর ভাংচুর করে এবং খড়ের পালায় আগুন দিলে গাবতলী ফায়ার সার্ভিস পৌছার আগেই পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এ রিপোট লেখা পর্যন্ত নিহতের মা রুলি বেগম ওরফে সুন্দরীর বাদীত্বে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। এ ব্যাপারে সহকারী পুলিশ সুপার (গাবতলী সার্কেল) সাবিনা ইয়াসমীন বলেন, মূল হত্যাকারীদের গ্রেফতার করতে পুলিশের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। ইতিমধ্যেই ৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে থানায় আনা হয়েছে। এদিকে মাত্র ৭দিন আগে উপজেলার দক্ষিণপাড়া ইউনিয়নের কৃষ্ণচন্দ্রপুর বাঙ্গালপাড়া গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের ছেলে সাজুর রিং স্লাব ল্যাট্রিনের ভিতর থেকে সুমন মিয়া (২৫) নামের এক ট্রাক ড্রাইভারের লাশ উদ্ধার করা হয়। তাকে সৎ ভাই হত্যা করে রিং স্লাব ল্যাট্রিনের ভিতর রেখে ছিল।

No comments

Leave a Reply

3 × two =

সর্বশেষ সংবাদ