Menu

গাবতলীতে বন্যার পানিতে ডুবেছে ২৭’শ হেক্টর কৃষি জমি ও শতাধিক বিল-পুকুর

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (বগুড়া প্রতিনিধি): যমুনা ও বাঙ্গালী নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে অতিবাহিত হওয়ায় বগুড়ার গাবতলীতে ১১টি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকায় বন্যার পানিতে ডুবে গেছে ২৭’শ হেক্টর কৃষি জমি ও শতাধিক বিল, পুকুর ও জলাশয়। নি¤œ অঞ্চল প্লাবিত হয়ে এখন উচু অঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। এতে করে উপজেলার বিভিন্ন খাল, বিল, পুকুর, জলাশয় ও হ্যাচারীর চাষকৃত প্রায় আড়াই থেকে ৩ কোটি টাকার মাছ ভেসে গেছে। চলতি মৌসুমে আউস ধানের বীজতলা, শাক-সবজি ও পাটের জমি বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। প্রায় ২৭’শ ৩০ হেক্টর কৃষি জমি পানির নিচে হাবুডুবু খাচ্ছে। এতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়তে পারে কৃষকরা। এছাড়াও বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গরু, ছাগল, হাঁস-মুরগীসহ বিভিন্ন প্রজাতির গবাদীপশু নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে বন্যা কবলিত এলাকার মানুষরা। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের নিচু রাস্তাঘাটও ডুবে গিয়ে মানুষের চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।
জানা গেছে, গত কয়েকদিনে যমুনা ও বাঙ্গালী নদীর পানি বৃদ্ধি হওয়ায় বগুড়ার গাবতলী উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকার নিন্ম অঞ্চল পানিতে হাবুডুবু খাচ্ছে। নি¤œ অঞ্চল প্লাবিত হয়ে এখন দিনকে দিন উচু অঞ্চল গুলোতেও পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় চলাচলের রাস্তা পানিতে ডুবে গিয়ে দূর্ভোগ বাড়ছে সাধারণ মানুষের। গাবতলী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মেহেদী হাসান জানান, উপজেলার ৩৬’শ ১০হেক্টর আবাদী কৃষি জমির মধ্যে ইতিমধ্যে ২৭’শ ৩০ হেক্টর জমি বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। এরমধ্যে রোপা আউস ধানের জমি ১হাজার হেক্টর, রোপা বীজতলা ৭’শ ৫০হেক্টর, পাট ৫’শ হেক্টর, বিভিন্ন সবজি ৪’শ ৩০হেক্টর ও লিপিয়ার ঘাস ৫০হেক্টর জমি পানির নিচে চাপা পড়েছে। এ পানি দ্রুত না নেমে গেছে কৃষকরা চরম ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে। উপজেলা মৎস্য অফিসসূত্রে জানা গেছে, গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন খাল, বিল, পুকুর, জলাশয় ও হ্যাচারীর চাষকৃত প্রায় আড়াই থেকে ৩ কোটি টাকার বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ভেসে গেছে। এতে চরম ক্ষতির মুখে পড়েছে মৎস্যজীবি ও মৎস্য চাষীরা। এরমধ্যে উপজেলার মহিষাবান ইউনিয়নের কাতলাহার বিলের প্রায় ৩০লাখ টাকা, উনচুরখী বিলের প্রায় ২০লাখ টাকা, সুখানপুকুর মিন্টু হ্যাচারীর প্রায় কোটি টাকার বিভিন্ন জাতের মাছ ভেসে গেছে বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। বন্যা কবলিত ইউনিয়ন গুলো হলো উপজেলার নেপালতলী, দুর্গাহাটা, মহিষাবান, বালিয়াদিঘী, নশিপুর, সোনারায়, নাড়–য়ামালা, রামেশ্বরপুর, দক্ষিণপাড়া, কাগইল, গাবতলী সদর ও পৌর অঞ্চল। হু হু করে বন্যার পানি বৃদ্ধি হওয়ায় উপজেলার কৃষক, নি¤œ আয়ের মানুষসহ সকল শ্রেণী পেশার মানুষের মাঝে হতাশা ও আতংক বিরাজ করছে।

No comments

Leave a Reply

17 − four =

সর্বশেষ সংবাদ

নির্বাচিত সংবাদ