Menu

গাবতলীতে বিউটিপার্লার কর্মীকে গনধর্ষণঃ মামলা তুলেনিতে বাদীকে হুমকি

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (আমিনুর ইসলাম): বগুড়ার গাবতলীতে বিউটি পার্লার কর্মী গনধর্ষণ মামলা করে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরলেও গ্রেফতার হচ্ছেনা। উল্টো মামলা তুলেনিতে বিভিন্নভাবে তাকে হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

জানাগেছে, বগুড়ার গাবতলী উপজেলার চকসদু গ্রামের মৃত জনৈক ব্যাক্তির মেয়ে বগুড়া শহরে একটি বিউটি পার্লারে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। বাড়ি থেকে ওই বিউটি পার্লার কর্মী শহরে যাতায়াতের সময় মামলার আসামী চকসদু উত্তর পাড়া গ্রামের আব্দুল বাছেদ’র ছেলে আব্দুল হান্নান (৪০) ও মৃত আফছার আলী প্রামানিকের ছেলে চাঁন মিয়া (৪৫) এবং বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার শ্মশানকান্দি উত্তরপাড়া গ্রামের দুদু মিয়ার ছেলে ফারুক হোসেন (২৫) মামলার বাদীনিকে বিভিন্নভাবে কু-প্রস্তাবসহ উৎত্যক্ত করতো।

বাদীনি তাদের কথায় রাজী না হওয়ায় আসামীগন তার ক্ষতি করার জন্য চলতি ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর ঘটনার দিন রাত ৯ টায় চকসদু এলাকায় ওৎ পেতে থাকে। বাদীনি শহর থেকে বাড়ি ফেরার সময় সিএনজি থেকে নামা মাত্র তাকে মুখ চেপে ধরে, গামছা দিয়ে হাত-পা বেধে পার্শ্বে একটি ভাংড়ির দোকানের পশ্চিম পাশ্বে জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে ৩ জনমিলে গনধর্ষণ করে।

এছাড়াও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় নখের আচঁড় দিয়ে ছেলা ফোলা জখম করে। ধর্ষণের ফলে বাদীনি অসুস্থ হয়ে পড়লে আসামীরা ঘটনার স্থলে বাদীনিকে ফেলে রেখে চলে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় বাদীনি বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি তার মাকে খুলে বলে।

এঘটনায় থানায় মামলা দিতে গেলে ওসি মামলা না নেয়ার কারনে ২০ নভেম্বর বগুড়া জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-০২ আদালতে গনধর্ষণের অভিযোগ এনে ওই বিউটি পার্লার কর্মী উপরোক্ত ৩ জনকে আসামী করে একটি মামলা করে।

আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে গাবতলী মডেল থানার ওসিকে এফ আই আর হিসাবে গন্যকরে পুলিশ ইনভেষ্টেকেশন অব ব্যুরো(পিবিআই)’কে তদন্তের নির্দেশ দেন। ২৬ নভেম্বর থানায় মামলাটি রেকর্ড করা হয়।

মামলার পর তদন্ত কর্মকর্তা বাদীনিকে ডাক্তারী পরীক্ষা করায়। বাদীনি অভিযোগ করে বলেন, আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে গ্রেফতার করা হচ্ছেনা। মামলা তুলেনিতে আসামীরা উল্টো বিভিন্নভাবে তাকে হুমকি দিচ্ছে।

এব্যপারে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বগুড়া পুলিশ ইনভেষ্টেকেশন অব ব্যুরো (পিবিআই)’র সাব-ইন্সপেক্টর এস আই আকরাম হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বাদীনির ডাক্তারী পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যায়নি, তদন্ত শেষ না করে এই মামলা বিষয়ে কোন মন্তব্য করা যাবেনা। আসামীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।

No comments

Leave a Reply

20 − 12 =

সর্বশেষ সংবাদ