Menu

গাবতলীতে যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে কৌশলে গর্ভপাতঃ স্বামী, শ্বশুর, শ্বাশুরীসহ ৫ জনের নামে মামলা

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (আমিনুর ইসলাম): বগুড়ার গাবতলীতে প্রেমিক খালাতো বোনকে বিয়ে করার লক্ষে স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে ভিটামিন ঔষধ সেবনের কথা বলে গর্ভপাতের ঔষধ খাইয়ে ৫ মাসের পুত্র সন্তান নষ্টের অভিযোগে স্ত্রী বাদী হয়ে আদালতে স্বামীসহ ৫ জনের নামে মামলা করেছে।

মামলা সুত্রে জানা গেছে, গাবতলী উপজেলার নেপালতলী ইউনিয়নের কদমতলী বকশিপাড়া গ্রামের পিতা মৃত তোফাজ্জল হোসেন ফকিরের মেয়ে তহমিনা আকতারের সাথে তার ফুফাতো ভাই দুর্গাহাটা ইউনিয়নের বাইগুনি পশ্চিমপাড়া গ্রামের ফজলুল হক আকন্দের ছেলে ফেরদাউস আকন্দের সাথে ২০১৭ সালের ১৩ জুলাই রজিষ্ট্রিমুলে বিবাহ হয়।

বিয়ের পর বাদীনির মাতা ও আত্মীয় স্বজনরা বিভিন্নভাবে ৫ লাখ টাকা স্বামী ফেরদাউস আকন্দকে প্রদান করে। এতেও সে সন্তুষ্ট না হয়ে সে আবারো তহমিনাকে মায়ের কাছ থেকে আরো ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে।

এতে বাদীনি বিধবা মাতা অপরগতা প্রকাশ করলে স্বামী, শ্বশুর, শ্বাশুরীসহ মামলার ২ ও ৩ নং এবং ১ নং আসামীর খালাতো বোন ৪ নং আসামী শান্তনা বেগম ও তার মা খালেদা বেগম বাদীনিকে শারীরিক ও মানষিকভাবে নির্যাতন ও জ্বালাযন্ত্রনা করতে থাকে।

১ নং আসামী স্বামী ফেরদোউস চলতি ২০২০ সালের ২৮ জানুয়ারী রাতে ৫ মাসের গর্ভবতী স্ত্রী তহমিনা আকতারকে ভিটামিন ঔষধ খাওয়ানের কথা বলে কৌশলে গর্ভপাতের ঔষধ সেবন করায়। এতে বাদীনি পেটের ব্যথায় অস্থির হলে পরদিন ২৯ জানুয়ারী তাকে চিকিৎসার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

চিকিৎসাধিন অবস্থায় বাদীনির গর্ভের ৫ মাসের পুত্র সন্তানের অকাল গর্ভপাত ঘটে। চিকিৎসা শেষে বাদীন পিতৃলয়ে বসবাস করলেও স্বামী, শ্বশুর কোন খোঁজ খবর না নিয়ে পুনরায় ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে।

এঘনায় বাদীনির বিধবা মা বিষয়টি মিমাংসার জন্য জামাইসহ মামলার আসামীদের ডাকলে ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে। বাদীনির মা তাতে আবারো অস্মতি জানালে আসামীরা বাদীনকে মারপিটকরে আহত করে।

১নং আসামী ক্ষিপ্ত হয়ে আরো বলে যে, তার তালাক প্রাপ্তা খালাতো বোন প্রেমিকা শান্তনা বেগমকে বিবাহ করবে। ১৯ ফেব্রæয়ারী বাদীনিকে চিকিৎসার জন্য বগুড়া মোহম্মদ আলী হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

এঘটনায় তহমিনা আকতার বাদী হয়ে বগুড়া জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যাল-নং-২ এ ৪৪ পি, নারী ও শিশু,২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন(২০০৩সালের ৩০ নং আইন দ্বারা প্রতিস্থাপিত) আইনের ১১(গ)/৩০ ধারা তৎসহ দঃ বিধির ৩১৩ ধারায় মামলা করেন।

এতে স্বামী ফেরদাউস, শ্বাশুরী মোমেনা, শ্বশুর ফজলুল হক, প্রেমিকা ও খালাতো বোন শান্তনা, খালা খালেদা বেগমকে আসামী করা হয়েছে। মামলাটি আদালত থেকে পুলিশ ইনভেস্টেকেশন অব ব্যুরো (পিবিআইকে) তদন্ত দেয়া হয়েছে বলে বাদী সুত্রে জানাগেছে।

No comments

Leave a Reply

eighteen − seventeen =

সর্বশেষ সংবাদ