Menu

গাবতলীর তরণীহাটের জায়গা থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (বগুড়া প্রতিনিধি): বগুড়া গাবতলীর ঐতিহ্যবাহী তরনীহাটে ৯একর জমিতে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের নির্দেশে গতকাল বুধবার বগুড়া জেলা প্রশাসনের এক্সজিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট জহুরুল ইসলামের নেতৃত্বে ও এসিল্যান্ড সালমা আক্তারের সহযোগিতায় প্রায় দেড়-দু’শতাধিক অবৈধ স্থাপনা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয়। এরআগে প্রশাসনের পক্ষ থেকে অবৈধ দখলদারদেরকে নির্মাণাধীন স্থাপনা সড়িয়ে নিতে নোটিশ দেয়া হয়েছিল।
জানা গেছে, গাবতলীর তরণীহাটে সরকারী খাস খতিয়াভুক্ত ৯একর জমি দখল করে স্থানীয় কিছু লোকজন দীর্ঘদিন আগেই অবৈধভাবে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করে ব্যবসা করে আসছিল। কেউ নির্মাণ করে টিনসেট পাকাঘর, কেউ বা সেমিপাকা ঘর আবার কেউ কেউ টিনসেট ঘর নির্মাণ করে সরকারী জায়গা বেদখল দেয়। এতে করে সরকার লাখ লাখ টাকা রাজস্ব হারিয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে অবৈধ দখলদারদের নোটিশ দিয়েও কোন কাজ হয়নি। এরই মধ্যে বর্তমান সরকারের নির্দেশে সারাদেশে শুরু হয় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান। এরই ধারাবাহিকতায় জেলা প্রশাসনের নির্দেশে প্রথমেই গত মঙ্গলবার নাড়–য়ামালা হাটে ৫একর জমিতে গড়ে ওঠা বিভিন্ন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু করেন। এরপর গতকাল বুধবার সারাদিন চলে এই অবৈধ উচ্ছেদ অভিযান। অভিযান চলাকালে অনেকেই নিজেদের অবৈধ স্থাপনা সড়িয়ে ফেলেছেন। তবে এই অবৈধ উচ্ছেদের কারণে অনেকই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। তাদের আয়-রোজগারের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। এখন অতি কষ্টে জীবন-যাপন করতে হবে বলে অনেকেই স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ ব্যাপারে গাবতলীর ইউএনও আব্দুল ওয়ারেছ আনসারী বলেন, এই অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে। কেউ বাঁধা দেয়ার চেষ্টা করলে তাদেরকেও ছাড়া দেয়া হবে না। এই উচ্ছেদ অভিযানে পুলিশ ও গ্রাম্য পুলিশরা সহযোগিতা করেন।

No comments

Leave a Reply

twenty − nineteen =

সর্বশেষ সংবাদ