Menu

গাবতলী উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন রবিবারঃ কে হবেন সভাপতি-সম্পাদক?

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (সাব্বির হাসান, গাবতলী): দীর্ঘ ৭বছর পর আগামীকাল সোমবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বগুড়ার গাবতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। ইতিমধ্যে সম্মেলনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন উপজেলা আ’লীগের সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। সকাল ১০টায় স্থানীয় পাইলট হাইস্কুল মাঠে সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মজিবর রহমান মজনু।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন তথ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক ও বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা এস এম কামাল হোসেন, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা এবং সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু। সভাপতিত্বে করবেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারঃ) আব্দুস সালাম ভূলন।

সঞ্চালনায় থাকবেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা আব্দুর রাজ্জাক মিলু। সম্মেলনে সভাপতি পদে মোট ৬জন এবং সাধারণ সম্পাদক পদে ১২জন দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। এজন্য সবার কাছে ঘুরেফিরে একটাই প্রশ্ন, কে হবেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক? সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনার পাশাপাশি উদ্বেগ-উৎকণ্ঠাও বিরাজ করছে।

দলীয় সূত্র জানায়, গাবতলী উপজেলা আ’লীগের সর্বশেষ ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৩ সালে। বিগত ওই সম্মেলনে সভাপতি নির্বাচিত হন এ এইচ আজম খান এবং সাধারণ সম্পাদক হন মোস্তফা আব্দুর রাজ্জাক মিলু।

আজম খান ও মিলু আওয়ামী লীগের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই গাবতলীতে দলকে সু-সংগঠিত করার জন্য এক প্রান্ত থেকে অপরপ্রান্ত পর্যন্ত ছুটে বেরিয়েছেন। এবং গাবতলীতে আ’লীগকে একটি শক্তিশালী অবস্থানে দার করিয়েছেন তারা।

কিন্তু ২০১৯সালের ১২ফেব্রুয়ারী এ এইচ আজম খান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের জন্য দলীয় মনোনয়নপত্র নিয়ে ঢাকা থেকে বগুড়াতে পা রেখেই ব্রেইন ষ্টোকে মারা যান তিনি। এরপর থেকেই উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম ভূলন দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। আজম খান মারা যাওয়ায় নেতাকর্মীরা অভিভাবক শূণ্য হয়ে পড়েন।

কেন্দ্রীয় আ’লীগের নির্দেশে ও উপজেলা আ’লীগের নেতাকর্মীদের অনুরোধে বগুড়া পৌর আ’লীগের সভাপতি রফি নেওয়াজ খান রবিন তখন গাবতলী পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হন।

স্বাধীনতার পর এই প্রথম বিএনপির দূর্গ হিসেবে খ্যাত গাবতলীতে আওয়ামী লীগ মনোনীত উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন মরহুম আজম খানের জামাই বগুড়া পৌর আ’লীগের সভাপতি রফি নেওয়াজ খান রবিন। এরপর থেকেই রবিন খান গাবতলীতে উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি নেতাকর্মীদের বুকে আগলে রাখেন। আ’লীগ ও সহযোগী সংগঠনকে সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করে গড়ে তোলেন।

করোনকালীন সময়ে রবিন খান আ’লীগের নেতৃবৃন্দ’র সাথে নিয়ে গোটা উপজেলায় অসহায় কর্মহীনদের মুখে খাবার তুলে দেন। সেইসাথে অসহায় শিশুদের মুখে তুলে দেন শিশু খাদ্য। এখন গাবতলীর অসহায় মানুষের আস্থার প্রতীক উপজেলা চেয়ারম্যান রফি নেওয়াজ খান রবিন। এছাড়াও বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি শিক্ষা ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানে অনুদান দিয়ে আসছেন তিনি।

এমতাবস্থায় আগামীকাল অনুষ্ঠিত হবে গাবতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। এই সম্মেলনে মোট ১৮জন সভাপতি-সম্পাদক প্রার্থী হওয়ায় ক্ষোভপ্রকাশ করেছেন দলের তৃর্নমূল নেতাকর্মীরা । দলের কোন কর্মকান্ডে জড়িত নেই, এমনজনই প্রার্থী হয়েছেন। আবার শারীরিক ও মানষিকভাবে দুর্বল এমন ব্যক্তিও সখের বশে সভাপতি এবং সম্পাদক পদে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। সম্মেলনকে ঘিরে উৎসাহ-উদ্দীপনার পাশাপাশি উদ্বেগ-উৎকণ্ঠাও বিরাজ করছে নেতাকর্মীদের মধ্যে।

তবে সে যাই হোক, কেন্দ্রীয় কিংবা বগুড়া আ’লীগের বিগ নেতারা রবিন খানের চাওয়া-পাওয়াকে গুরুত্ব দিয়ে গাবতলী উপজেলা আ’লীগের কমিটি গঠন করবেন-এমন প্রত্যাশাই করেছেন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। নইলে গাবতলীতে আওয়ামী লীগ দ্বিধা-বিভক্ত হয়ে পড়বে। সাংগঠনিকভাবে হয়ে পড়বে দুর্বল। সুযোগ নিবে প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দল।

No comments

Leave a Reply

16 + eleven =

সর্বশেষ সংবাদ