Menu

গাবতলী পৌরসভা নির্বাচনঃ ভােট চাওয়া নিয়ে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্য সংঘর্ষ, আহত ১০

আমিনুর ইসলামঃ বগুড়ার গাবতলী পৌরসভা নির্বাচনে ভােট চাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্য সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হয়েছে। আহতরা বগুড়া শজিমেক ও গাবতলী হাসপাতাল চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছে। এঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা চলছে। ঘটনা এলাকায় পুলিশ টহল বাড়ানাে হয়েছে।
এলাকার একাধিক সুত্রথেকে জানাগেছে, ৮ জানুয়ারী রাতে বর্তমান কাউন্সিলর ও প্রার্থী সােহেল রানার সমর্থক ইমরান হােসেনকে অপর কাউন্সিলর প্রার্থী গােলাম রব্বানী রতনের সমর্থক আলামিন ভােট চাওয়াকে কেন্দ্র করে মারপিট করে। এঘটনায় প্রথমদফা সংঘর্ষ হলে প্রার্থী রতনের ২ জন সমর্থক আহত হয়। তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। উক্তঘটনায় এলাকায় ব্যাপকভাবে উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। গাবতলী সরকারি হাসপাতালে আহতদের দেখতে যাওয়ার পথে সােহেল রানার ভােট ক্যাম্পের কাছে তার সমর্থকরা পাকা রাস্তার উপর ভ্যানগাড়ি থামিয়ে লাঠিসােটা ও ধারালো দেশিয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এতে ব্যবসায়ী রেজওয়ানুল হক মানিক, ৭নং ওয়ার্ড আঃ লীগের সভাপতি আব্দুল জােব্বার, আবুল হােসন সােনার, লুৎফর রহমান ও রাসেল পাইকারসহ ৫জনকে আহত করাহয় বলে গােলাম রব্বানী রতনের পক্ষ থেকে ও হাসপাতাল চিকিৎসাধিন আহতরা অভিযাগ করেন। হামলার অভিযােগ অস্বীকার করে বর্তমান কাউন্সিলর ও কাউন্সিলর প্রার্থী সােহেল রানা বলেন, আমার সমর্থক ইমরান হােসেনকে ধরে নিয়ে গিয়ে মারপিট করে। তাকে ছাড়াতে গেলে সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়। এসময় আবু তাহের, জাহিদুল ইসলাম জিহাদ ও রব্বনী আহত হয়। আহত আবু তাহেরকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাল (শজিমক) ও অন্যদেরকে গাবতলী সরকারি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনায় পরদিন ৯ জানুয়ারী সকালে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে ও উভয় প্রার্থীর সমর্থকরা লাঠিসােটা নিয়ে মহড়া দেয়। সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় পুলিশের টহল জােরদার করা হয়েছে। এব্যপারে গাবতলী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুরুজ্জামানের সাথে যােগাযােগ করা হলে তিনি জানান, গাবতলী পৌর সভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী রতন ও সােহেল রানার সমর্থকদের মধ্য ভােট নিয়ে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে কয়েকজন আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। দুপুর আড়াইটা পযন্ত এরিপাের্ট লেখা পর্যÍ কােন পক্ষই থানায় অভিযাগ ও এজাহার দেননি। উল্লেখ্য চলতি ২০২১ সালের ১১ জানুয়ারী প্রতিক বরাদ্দ এবং ৩০ জানুয়ারী বগুড়ার গাবতলী পৌরসভা নির্বাচনের ভােট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। গাবতলী পৌরসভা নির্বাচনঃ
ভােট চাওয়া নিয়ে দুই কাউন্সিলর
প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্য সংঘর্ষ, আহত ১০
আমিনুর ইসলামঃ বগুড়ার গাবতলী পৌরসভা নির্বাচনে ভােট চাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্য সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হয়েছে। আহতরা বগুড়া শজিমেক ও গাবতলী হাসপাতাল চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছে। এঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা চলছে। ঘটনা এলাকায় পুলিশ টহল বাড়ানাে হয়েছে।
এলাকার একাধিক সুত্রথেকে জানাগেছে, ৮ জানুয়ারী রাতে বর্তমান কাউন্সিলর ও প্রার্থী সােহেল রানার সমর্থক ইমরান হােসেনকে অপর কাউন্সিলর প্রার্থী গােলাম রব্বানী রতনের সমর্থক আলামিন ভােট চাওয়াকে কেন্দ্র করে মারপিট করে। এঘটনায় প্রথমদফা সংঘর্ষ হলে প্রার্থী রতনের ২ জন সমর্থক আহত হয়। তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। উক্তঘটনায় এলাকায় ব্যাপকভাবে উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। গাবতলী সরকারি হাসপাতালে আহতদের দেখতে যাওয়ার পথে সােহেল রানার ভােট ক্যাম্পের কাছে তার সমর্থকরা পাকা রাস্তার উপর ভ্যানগাড়ি থামিয়ে লাঠিসােটা ও ধারালো দেশিয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এতে ব্যবসায়ী রেজওয়ানুল হক মানিক, ৭নং ওয়ার্ড আঃ লীগের সভাপতি আব্দুল জােব্বার, আবুল হােসন সােনার, লুৎফর রহমান ও রাসেল পাইকারসহ ৫জনকে আহত করাহয় বলে গােলাম রব্বানী রতনের পক্ষ থেকে ও হাসপাতাল চিকিৎসাধিন আহতরা অভিযাগ করেন। হামলার অভিযােগ অস্বীকার করে বর্তমান কাউন্সিলর ও কাউন্সিলর প্রার্থী সােহেল রানা বলেন, আমার সমর্থক ইমরান হােসেনকে ধরে নিয়ে গিয়ে মারপিট করে। তাকে ছাড়াতে গেলে সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়। এসময় আবু তাহের, জাহিদুল ইসলাম জিহাদ ও রব্বনী আহত হয়। আহত আবু তাহেরকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাল (শজিমক) ও অন্যদেরকে গাবতলী সরকারি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনায় পরদিন ৯ জানুয়ারী সকালে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে ও উভয় প্রার্থীর সমর্থকরা লাঠিসােটা নিয়ে মহড়া দেয়। সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় পুলিশের টহল জােরদার করা হয়েছে। এব্যপারে গাবতলী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুরুজ্জামানের সাথে যােগাযােগ করা হলে তিনি জানান, গাবতলী পৌর সভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী রতন ও সােহেল রানার সমর্থকদের মধ্য ভােট নিয়ে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে কয়েকজন আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। দুপুর আড়াইটা পযন্ত এরিপাের্ট লেখা পর্যÍ কােন পক্ষই থানায় অভিযাগ ও এজাহার দেননি। উল্লেখ্য চলতি ২০২১ সালের ১১ জানুয়ারী প্রতিক বরাদ্দ এবং ৩০ জানুয়ারী বগুড়ার গাবতলী পৌরসভা নির্বাচনের ভােট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে।

No comments

Leave a Reply

five × 3 =

সর্বশেষ সংবাদ