Menu

গাবতলী মামলা তুলে নিতে বাদীকে অপহরনঃ পুলিশ অভিযানে উদ্ধার

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (গাবতলী প্রতিনিধি): বগুড়ার গাবতলীতে বিভিন্নভাবে হুমকি ধমকি দিয়ে মামলাতুলে না নেয়ায় বাদীকে সিএনজিতে তুলে অপহরন। সাদা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়ার চেষ্টাকালে পুলিশ কর্তৃক ১ ঘন্টার মধ্য বাদীকে উদ্ধার করেছে। এঘটনায় থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। মামলাসুত্রে জানাগেছে, গাবতলী উপজেলার দুর্গাহাটা ইউনিয়নের বাইগুনি চকপাড়া গ্রামের মৃত চাঁন মিয়া প্রাং’র ছেলে চাল ব্যবসায়ী আনিছার রহমানের ম্যানেজার থাকাকালে একই ইউনিয়নের পাইকরতলী গ্রামের মৃত সায়েদ আলী মন্ডলের ছেলে আব্দুল করিম ১০ লাখ টাকার মধ্য ৭ লাখ ৫১ হাজার ৫০৮ টাকা আত্মসাত করে। টাকা চাইতে গেলে তালবাহানা ও আসামী আব্দুল করিমসহ তার সহযোগীরা চলতি বছরের ১৯ এপ্রিল বাদীর বাড়ীতে গিয়ে গালিগারাজ করে কিলঘুসি মেরে শার্টের পকেট থেকে ব্যবসার ১৫ হাজার টাকা কেড়ে নেয়। এঘটনায় আনিছার রহমান বাদী হয়ে বগুড়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে পাইকরতলী গ্রামের মৃত সায়েদ আলী মন্ডলের ছেলে আব্দুল করিম ও জহুরুল ইসলাম এবং আবতাব হোসেন মন্ডলের ছেলে রুবেলসহ অজ্ঞাত ৩/৪ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি আদালত থেকে তদন্তপুর্বক প্রতিবেদন প্রদানের জন্য গাবতলী মডেল থানার অফিসারইনর্জা’র উপর দায়িত্ব অর্পন করেন। মামলাটি থানার এসআই কান্তি কুমার মোদক তদন্ত করছেন। এই মামলা তুলেনিতে বাদী আনিছার রহমানকে আসামীরা মোবাইল ফোন ও বিভিন্নভাবে প্রাননাশসহ হুমকি ধমকি দিয়ে আসছিল। মামলা তুলে নিতে ব্যর্থ হয়ে ১ মে রাত ৯ টায় স্থানীয় হাতিবান্দা বাজারে বাদী অবস্থান করাকালে আসামীরা ২ টি সিএনজি যোগে বাদী আনিছার রহমানকে ধরে চোখ-হাত-পা বেধে অপহরন করে তাদের বাড়ীতে নিয়ে সাদা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়ার চেষ্টাকরে। সংবাদ পেয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কান্তি কুমার মোদক সঙ্গীয় অভিযান চালিয়ে রাত ১০ টায় আসামীদের বাড়ী থেকে তাকে উদ্ধার করে। পুলিশের উপস্থিতি টেরপেয়ে আসামীরা পালিয়ে গেলে কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। এব্যপারে গাবতলী মডেল থানার এসআই কান্তি কুমার মোদকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বাদী ফোনে জানায় তাকে আসামীরা অপহরন করেছে। এসংবাদ পেয়ে ওসি স্যারের নির্দ্দেশে ফোর্সনিয়ে রাতেই অভিযান চালিয়ে ১ ঘন্টার মধ্য পাইকরতলী গ্রাম থেকে মামলার আসামীদের বাড়ী থেকে বাদী আনিছার রহমানকে উদ্ধার করে নিয়ে আসি। আসামীরা পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি। গাবতলী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সেলিম হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনিও সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মামলার বাদীকে আসামী ধরে নিয়ে গেছে এমন সংবাদপেয়ে পুলিশ ফোর্স পাঠিয়ে তাকে উদ্ধার করা হয়। এ বিষয়ে ৩ জনের নামে একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

No comments

Leave a Reply

five × 4 =

সর্বশেষ সংবাদ