Menu

বগুড়ায় আজিজুল হক কলেজের পাশের জঙ্গল থেকে নবজাতক উদ্ধারঃ হাসপাতালে ভর্তি

সোনাতলা সংবাদ ডটকম ডেস্কঃ বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজের পাশের জঙ্গল থেকে এক নবজাতককে উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার রাত ১১টায় শিশুটিকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

৯৯৯ নম্বরে ফোন করে পুরো বিষয়টি পুলিশের নজরে আনেন আজিজুল হক কলেজ থেকে সদ্য মাস্টার্স পাস করা দুই বন্ধু, বগুড়ার ধুনট উপজেলার দেউরিয়া গ্রামের আবদুল্লাহ এবং সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার কাফিহারা গ্রামের শামীম রেজা।

ওই দুজন জানান, বুধবার রাত পৌনে ১০টার দিকে আজিজুল হক কলেজ ক্যাম্পাসে হাঁটাহাটি করছিলেন তারা। এ সময় হঠাৎ শিশুর কান্না শুনতে পান। পরে খুঁজতে খুঁজতে কলেজের পাশের রেললাইনের ধারে জঙ্গলের ভেতর থেকে কান্নার আওয়াজ নিশ্চিত হন তারা। তখন মুঠোফোনের টর্চ লাইটের আলো ফেলতেই গামছার কাপড়ে পেঁচানো এক নবজাতককে দেখতে পান তারা। পরে তারা ৯৯৯ নম্বরে ফোন দেন। ফোন পেয়ে বগুড়া স্টেডিয়াম ফাঁড়ির পুলিশ এসে নবজাতক শিশুটিকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে হাসপাতালের শিশু বিভাগে গিয়ে এই দুই বন্ধু নবজাতক শিশুটিকে দেখে আসেন। শিশুটি হাসপাতালের নবজাতক ওয়ার্ডের ইউনিট ওয়ান-সিতে ভর্তি রয়েছে। শিশু রোগ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. এম এ মান্নান শিশুটির ত্বত্তাবধান করছেন।

শিশু বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত ডা. এহসানুল হক মাসুম বলেন, ‘নবজাতকটি কন্যা সন্তান। জন্মগতভাবে শিশুটির ঠোঁট কাটা। তবে শিশুটি সুস্থ রয়েছে।’

বগুড়া স্টেডিয়াম ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজ হাসান বলেন, ‘৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে নবজাতক শিশুটিকে উদ্ধার করে শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জন্মের পরপরই নাড়ি কেটে শিশুটিকে জঙ্গলে ফেলে রাখা হয়। খান্দার এলাকার পারভীন বেগম নামে একজন নারী হাসপাতালে শিশুটিকে দেখাশোনা করছেন।’

পুলিশের এ কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর অনেক দম্পতি শিশুটিকে দত্তক নেওয়ার জন্য হাসপাতালে আসছেন। কিন্তু শিশুটি ঠোঁট কাটা থাকায় কেউ দত্তক নিতে আগ্রহ দেখাচ্ছে না।’

No comments

Leave a Reply

three × five =

সর্বশেষ সংবাদ