Menu

বগুড়ায় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র পরিবহন ব্যয়ের ৩ গুণ আদায় করা হচ্ছে!

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (বদিউদ-জ্জামান মুকুল, সোনাতলা): বগুড়ায় পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্ন পরিবহনে ব্যয়ের ৩ গুণ বেশি আদায় করা হচ্ছে। এ নিয়ে কেন্দ্র সচিবদের মাঝে চাপা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আগামী ১ ফেব্রæয়ারী ২০২০ তারিখ থেকে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষা শুরু হবে। ওই পরীক্ষার ২৫৬টি প্রশ্নপত্রের ট্রাংক ঢাকা বিজি প্রেস থেকে বগুড়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আনার জন্য পরিবহন খরচ বাবদ কেন্দ্র সচিবদের নিকট থেকে মোটা অংকের টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে ভুক্তভোগীরা জানান।

এ বিষয়ে সোনাতলা সরকারী মডেল হাইস্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ মতিয়ার রহমানের নিকট থেকে ২০১৯ সালের জেএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন পরিবহনের জন্য ১২ হাজার টাকা এবং ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন পরিবহনের জন্য ৮ হাজার টাকা জেলা প্রশাসকের শিক্ষা ও কল্যাণ শাখা সহকারী আজমল হোসেন গ্রহণ করেন। অনুরুপ কথা বলেন, বগুড়া জেলার বিভিন্ন কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিবগণ।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকের শিক্ষা ও কল্যাণ শাখার সহকারী আজমল হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এবার এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ঢাকা বিজি প্রেস থেকে বগুড়ায় আনতে ৩টি ট্রাক ভাড়া করা হয়েছে।

এছাড়াও রয়েছে অফিসার ও পুলিশ সদস্যদের যাতায়াত খাওয়া ও সম্মানী ভাতা। এছাড়াও তিনি আরও জানান, পরীক্ষার পূর্বে কেন্দ্র সচিবদের সাথে জেলা প্রশাসকের মতবিনিময় সভায় নাস্তা খরচ। এতে মোটা অংকের টাকা ব্যয় হয়।

এ দিকে কেন্দ্র সচিবদের নিকট থেকে প্রশ্ন পরিবহন বাবদ পরীক্ষার্থী অনুপাতে ৪ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করছে।
২০২০ সালে বগুড়ার ৪০টি কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়াও আরও ৩২টি কেন্দ্রে দাখিল ও বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের এসএসসি ভোকেশনাল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

প্রতিবছর পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র পরিবহনের নামে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেওয়া হলেও কেন্দ্র সচিবরা কেউ এ বিষয়ে মুখ খোলার সাহস পাচ্ছে না।

এ বিষয়ে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোঃ জহিরুল হক জানান, ২০২০ সালের অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষার ২৫৬টি ট্রাংক এবার পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে বগুড়া জেলা প্রশাসকের শিক্ষা ও কল্যাণ শাখার দায়িত্ব প্রাপ্ত সহকারী কমিশনার পাপিয়া সুলতানার সাথে গতকাল শুক্রবার মোবাইল ফোনে ৪টা ১৫ মিনিটে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে এডিসি শিক্ষার সাথে যোগাযোগ করার কথা জানান।

এ বিষয়ে বগুড়ার এডিসি মাসুম আলী বেগের সাথে গতকাল বেলা সোয়া ৪টার পর একাধিকবার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

No comments

Leave a Reply

13 − 2 =

সর্বশেষ সংবাদ