Menu

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের রায়গঞ্জ বিধান মঞ্চে কাহালু থিয়েটারের গন্থিকগণ কহে নাটক

মুনসুর রহমান তানসেন কাহালু থেকেঃ  যাত্রাপালার শিল্পীদের জীবনের গল্প, যাত্রাপালার বর্তমান অবস্থা ও যাত্রা শিল্পকে নিয়ে নানান মানুষের নানান রঙ্গের কথামালা নিয়ে গন্থিকগণ কহে নাটকের কাহিনী। এই গল্পটির রচিয়তা বাংলা নাটকের প্রাণ পুরুষ আচার্য ড. সেলিম আল দীন।
গত ২১ ও ২২ সেপ্টেম্বর ভারতের পশ্চিমবঙ্গের রায়গঞ্জ দেবীনগর জাগরী থিয়েটার গ্র“প দুই বাংলার সংস্কৃতি প্রেমী মানুষের মিলন ঘটানোর প্রত্যয় নিয়ে সফল ভাবে আয়োজন করে দুই বাংলার নাট্য মিলন উৎসব। এই উৎসবের মধ্যে আরো বড় চমক ছিলো স্কুল নাট্য প্রতিযোগীতায় শিশু-কিশোরদের নাটক।
রায়গঞ্জ বিধান মঞ্চে দুই বাংলার নাট্য মিলন উৎসবে বাংলাদেশের বগুড়ার কাহালু থিয়েটার মঞ্চায়ন করে গন্থিকগণ কহে নাটক। আচার্য ড. সেলিম আল দীনের রচনায়, আব্দুল হান্নানের নির্দেশায় এই নাটকটি দর্শকদের আবেগ অনুভতিতে ঠিক ভালোভাবেই নাড়া দিয়েছে। বিশেষ করে যাত্রাপালার নেপথ্যের কাহিনী ও লোকপালার সংযুক্ত গান দর্শকদের হৃদয়ে দিয়েছে দোলা। রায়গঞ্জের দর্শকরা জানিয়েছেন কাহালু থিয়েটার নাটক মঞ্চায়নের মাধ্যমে দুই বাংলার মানুষের মধ্যে যে, স¤প্রীতি সৃষ্টি করলো তা অবশ্যই স্বরণীয় হয়ে থাকবার কথা। এই স¤প্রীতির কথা কখনো ভুলবার মতো নয়।
এদিকে গন্থিকগণ কহে নাটকে যারা অভিনয় করেছেন তারা হলেন মুড়– ঘোষাল-শাহাজাত আলী বাদশা, শাকামাল-সিজুল ইসলাম, নিশি-ফারহা রহমান স্মৃতি, কামাক্ষী-মুনসুর রহমান তানসেন, শঙ্কর-সাইফুল ইসলাম, চম্পা-বিথীবালা, চেয়ারম্যান ফরিদুর রহমান ফরিদ, গজেন্দ্র গোলাম রব্বানী, দিলরুবা-সায়ন্তিকা সরকার ঐশি, রজনী-মুনসুর সরদার। আবহ সঙ্গীতে ছিলেন সুবাস চন্দ্র দাস মিঠু, বাউল সেকেন্দার আলী মুন্সী, আব্দুল আজিজ ও সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক। রুপসজ্জায় ছিলেন পিএম আইনুল ইসলাম ও নয়নকান্তি।
জানা গেছে ২১ সেপ্টেম্বর দিনভর অনুষ্ঠিত হয় স্কুল ভিত্তিক ছোট নাটক প্রতিযোগীতা। ওইদিন রায়গঞ্জের হাতিয়া হাইস্কুলের পাঠশালা, মাগাইকুড়া স্কুলের তাসের ঘর, দেবীনগর কৈলাশ রাধারাণী বিদ্যালয়ে মহেষ, তাহেরপুর হাইস্কুলের হাসির লড়াই, শ্রী শ্রী রাম কৃষ্ণ উচ্চ বিদ্যালয়ের ঠকারাম ঠকবাজ, রায়গঞ্জ করোশেন হাইস্কুলের একদিন জন্মদিন নাটক মঞ্চায়ন হয়। এছাড়াও ২১ সেপ্টেস্বর বিভিন্ন একাডেমির পরিবেশনায় আরো কয়েকটি শিশু-কিশোরদের নাটক মঞ্চায়ন করা হয়। স্কুল ভিত্তিক নাট্য প্রতিযোগীতার পরই দুই বাংলার নাট্য মিলন উৎসবের প্রথমে ২৪ পরগনার নৈহাটী আতপুর জাগৃতি থিয়েটার মঞ্চায়ন করে মানিক রায় চৌধুরীর রচনায় নাটক ছায়া। এরপরই কাহালু থিয়েটারের পরিবেশনায় মঞ্চায়িত হয় গন্থিকগণ কহে নাটক।
২২ সেপ্টেম্বর কালিয়াগঞ্জ অনন্য থিয়েটার পরিচালনায় শিশুদের নাটক মেয়েটির নাম মেঘ ও জাগরী থিয়েটার গ্র“পের শিশুদের একটি নাটক মঞ্চায়ন করা হয়। শিশুদের নাটক শেষে দুই বাংলার নাট্য মিলন উৎসবে প্রথমে কলকাতার দক্ষিনেশ্বরের কোমলগান্ধারের বোধোদয় ও আয়োজক দল জাগরী থিয়েটার গ্র“পের চিটিংবাজ নাটক মঞ্চায়িত হয়।
গত ২১ ও ২২ সেপ্টম্বর বৈরী অক্ষহাওয়ার মধ্যেই সঠিক সময়ে দুই বাংলার নাট্য মিলন উৎসব সফল ভাবে অনুষ্ঠিত হয় রায়গঞ্জ বিধান মঞ্চে। দিনভর বৃষ্টিপাতের মধ্যেও বিধান মঞ্চে ছিলোনা স্রোতা-দর্শকের কমতি। দুই বাংলার নাট্য মিলন উৎসব শেষে জাগরী থিয়েটার গ্র“পের প্রধান কর্তা শান্ত রাহার নেতৃত্বে জাগরী থিয়েটার গ্র“পের সকলে কাহালু থিয়েটারের সকল নাট্যকর্মির সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে। এছাড়াও রায়গঞ্জের ছন্দমসহ বিভিন্ন সংস্থার নাট্যকর্মিরা এবং স্থানীয় সাংবাদিকরা কাহালু থিয়েটারের নাট্যকর্মিদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে।
অপরদিকে কাহালু থিয়েটারের নাট্যকর্মিরা রায়গঞ্জের বিধান মঞ্চে পৌছা মাত্র তাদেরকে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করে নেয় জাগরী থিয়েটার গ্র“পের সকল সদস্য বৃন্দ। সেখানে বাংলাদেশী নাট্যকর্মিদের অপ্যায়নে সব সময় সজাগ ছিলেন জাগরীর নাট্যকর্মিরা। দুদিনব্যাপী দুই বাংলার নাট্য মিলন উৎসব ঘিরে এপার বাংলা ওপার বাংলার সংস্কৃতি প্রেমী মানুষের মধ্যে ছিলো বাঁধভাঙ্গা আনন্দ-উচ্ছাসের বন্যা । উৎসব শেষে যখন আনুষ্ঠানিকভাবে কাহালু থিয়েটারের নাট্যকর্মিদের বিদায় জানানো হয়, তখন কাহালু থিয়েটার ও জাগরী থিয়েটারের গ্র“পের সকল সদস্যদের কন্ঠে ছিলো বিষাদের সুর। দুই বাংলার মানুষের এই মিলন মেলা ভেঙ্গে যাওয়া পর অনেকের চোখে ছল ছল করে অশ্র“।

No comments

Leave a Reply

nineteen − fourteen =

সর্বশেষ সংবাদ