Menu

সারিয়াকান্দিতে আশ্রয়ণে ঠাঁই পাওয়া পরিবারের খোজ খবর নিলেন ইউএনও রাসেল মিয়া

পাভেল মিয়া, স্টাফ রিপোর্টার: “আশ্রয়ণের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার” মুজিববর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে মাথা গোঁজার ঠাঁই পেয়েছেন বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার ১০৭ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার। গতকাল উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে যেয়ে উপকারভোগী পরিবারগুলোর খোজ খবর নেন ও তাদের সাথে কথা বলেন ইউএনও রাসেল মিয়া। এর পর তৃতীয় কিস্তিতে ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠীর জন্য নির্মিততব্য ঘরের কাজ পরিদর্শন ও চতুর্থ কিস্তিতে ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠীর জন্য বরাদ্দ প্রাপ্ত ৫টি ঘরের উপকারভোগী সরেজমিনে বাছাই করেন।
উপকারভোগী দিলবাসি বেগম বলেন, হামি মানুষের বাড়ি বাড়ি থাকতাম , বাড়ি-ঘর এমনকি নিজের বলতে কিচ্ছু ছিলোনা, খুব কষ্ট করে মানুষের জায়গায় থাকতাম। শেখ হাসিনা হামাক ঘর দিছে, হামি খুব খুশি। ঘর পেয়ে হামার মাথা গোঁজার ঠাঁই হয়েছে। হামি আল্লাহর কাছে দোয়া করি, প্রধানমন্ত্রী যেন দীর্ঘজীবী হয় ও মানুষের জন্য আরও বেশি কাজ করতে পারে।
এদিকে সরকারের কল্যাণমুখী প্রকল্পের সুফল উপকার ভোগী তৃণমূল মানুষের দরজায় পৌঁছে দিতে ক্লান্তিহীন ছুটে চলা ইউএনও রাসেল মিয়ার নামটি এখন সাধারণ মানুষের কাছে বেশ জনপ্রিয়। এ কারণে সারিয়াকান্দি উপজেলা প্রশাসন আস্থার জায়গা হয়ে উঠেছে উপজেলাবাসীর কাছে। মহামারি করোনা শুরু থেকেই জন কল্যাণকর নানা কর্মসূচি বাস্তবায়নে সম্মুখ যোদ্ধা হিসেবে কাজ করেছেন ও এখনো করছেন রাসেল মিয়া। তিনি উপজেলার বিভিন্ন শ্রেনীর নেতাদের সঙ্গে নিয়ে সারিয়াকান্দি উপজেলার সমস্যা সম্ভাবনাকে খুঁজে বের করে একটি ডেটা প্লানের মাধ্যমে তা বাস্তবায়ন শুরু করেন। যা একজন দক্ষ প্রশাসকের পরিচয়।
সারিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রাসেল মিয়া বলেন, মানব সেবার ব্র্রত নিয়েই চাকরিতে এসেছি। আমি এ উপজেলাবাসীর জন্য যেটা করছি তাহা আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য থেকেই করছি। প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন মুজিববর্ষে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমরা প্রশাসন নিরলসভাবে কাজ করছি ও করে যাচ্ছি। সব মিলিয়ে চেষ্টা করছি নিজের দায়িত্বে অবিচল থেকে মানুষের উপকার করার জন্য।

No comments

Leave a Reply

14 + 19 =

সর্বশেষ সংবাদ