Menu

সারিয়াকান্দিতে মিষ্টি কুমড়া চাষে সুদিনের স্বপ্ন দেখছেন মিলন মিয়া

পাভেল মিয়া, স্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার যমুনার খরস্রোতা যমুনার জেগে ওঠা বালু চরে যমুনা পাড়ের কৃষকরা চাষ করছেন মিষ্টি কুমড়া। শনিবার সরেজমিন উপজেলার কাজলা ইউনিয়নের উত্তর বেনীপুর চরে ঘুরে দেখা গেছে কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছেন কুমড়া ক্ষেত পরিচর্যায়। এরই ধারাবাহিকতায় ৮০ বিঘা জমিতে মিষ্টি কুমড়া চাষ করে সুদিনের স্বপ্ন দেখছেন মিলন মিয়া।
সরেজমিনে গিয়ে ৩২ বছর বয়সি মিলন মিয়ার সাথে কথা বলে তিনি জানান, গত বছর আমার চাচাত ভাই মিষ্টি কুমড়া চাষ করে ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছে। তার সফলতা দেখে আমিও মিষ্টি কুমড়া চাষে চাষ করতে ব্যস্থ সময় পাড় করছি। তিনি আরো বলেন, মিষ্টি কুমড়ার চারা তৈরি এবং রোপন করতে আমার ৩ লাখ ২০হাজার টাকার মতো ব্যয় হয়েছে। এ টাকা ব্যয় ও পরিশ্রম করে ভালো ফসলের আশা করছেন তিনি। অন্যান্য সবজি খামারের তুলনায় মিষ্টি কুমড়ায় লাভ বেশি।
এম.এ গফুর, সাজিদ মিয়া, আপেল মিয়া, সুফল মিয়া, জানান, কুমড়া বীজ বপন থেকে কুমড়া পরিপক্ক হওয়া পর্যন্ত সময় লাগে ৭০ থেকে ৭৫ দিন। প্রতি পিস কুমড়া ৩০ টাকা থেকে প্রকারভেদে ৫০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে। কিন্তু বর্তমানে কুমড়ার ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশংকা করছেন স্থানীয় কৃষকরা। জানতে চাইলে কৃষক এম.এ গফুর বলেন, শুনেছি গত বছর অনেক কৃষক মিষ্টি কুমড়া চাষ করে লাভবান হয়েছেন। এরই ধারাবাহিকতা মিষ্টি কুমড়া চাষ করেছি। তিনি আরো বলেন, সরকারীভাবে আমাদের আর্থিক সহযোগীতা ও আধুনিক চাষাবাদের প্রশিক্ষণ পেলে প্রতিবছর আমরা মিষ্টি কুমড়া চাষাবাদ করবো।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হালিম জানান, শীতকালীন সবজি চাষে কৃষকদের পরামর্শ ও সব সহযোগীতা দেওয়া হচ্ছে। কৃষকদের আধুনিক ও প্রযুক্তিনির্ভর হিসেবে গড়ে তুলতে কৃষি বিভাগ আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে, যার ফল পাচ্ছেন কৃষকরা।

No comments

Leave a Reply

5 × 3 =

সর্বশেষ সংবাদ