Menu

সুখানপুকুরে সড়কে ডাকাতির প্রস্ততিকালে ছাত্রদল নেতাসহ ৩ ডাকাত গ্রেফতারঃ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার

সোনাতরা সংবাদ ডটকম (বগুড়া ও গাবতলী প্রতিনিধি): বগুড়ার গাবতলী উপজেলার সুখানপুকুর সৈয়দ আহম্মদ কলেজ বটতলা থেকে আটাপাড়া সড়কের কুচেমাড়িতে ডাকাতির প্রস্ততিকালে পুলিশ দেশিয় ধারালো অস্ত্রসহ ৩ ডাকাতকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। মঙ্গলবার (৯ জুলাই) রাতে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলো, উপজেলার নেপালতলী ইউনিয়নের সুখানপুকুর এলাকার রাঙ্গার ছেলে সৈকত (৩৫), গাবতলী পৌরসভার খলিশাকুড়া গ্রামের বাটালু ওরফে আবেদালীর ছেলে মিজানুর রহমান(৩২) ও নেপালতলী কালুডাঙ্গা শেখ পাড়ার মৃত আব্দুল গনি শেখের ছেলে মাসুদুর রহমান মাসুদ (৪৩)।
মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ সেলিম হোসেন জানান, ঘটনার রাতে টহলরত এস আই কান্তি কুমার মোদক, রিপন, এএসআই নয়ন কুমার হোড়, হাবিবুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স সুখান পুকুর এলাকায় টহল দেয়ার সময় গোপনে সংবাদ পায় যে, সোনারায় ইউনিয়নের আটাপাড়া কুচিয়ামারা ব্রীজ এলাকায় ১৫/১৬ জনের একদল লোক ডাকাতীর প্রস্ততি নিচ্ছে। বিষয়টি টহল পুলিশ ফোনে আমাকে জানালে আমি তাদেরকে নির্দ্দেশ দিলে টহল পুলিশ ঘটনার স্থানে উপস্থিত হয়। সেখানে ধাওয়া করে ধারালো ফোল্ডিং আধুনিক চাকু ও রামদাসহ সৈকত ও চাইনিজ কুড়ালসহ মিজানুর রহমানকে গ্রেফতার করে। অন্য ডাকাতরা পালিয়ে যাওয়ার সময় তাদের ফেলে যাওয়া লোহার রড, গাছ কাটা করাত পুলিশ উদ্ধার করে। ধৃতদের কথামত ডাকতির প্রস্ততির সাথে জড়িত থাকায় আজ বুধবার সকালে নেপালতলী ইউনিয়নের শেখ পাড়া থেকে মাসুদুর রহমান মাসুদকে গ্রেফতার করা হয়। মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ সেলিম হোসেন আরো জানান, গ্রেপ্তারকৃত ডাকাত সৈকত ২০১৪ সালে ১৮ জুলাই সংঘঠিত ছিনতাই ও ২০০৮ সালের ১২ এপ্রিলে সংঘঠিত বগুড়া সদর থানায় গনধর্ষণ মামলার পলাতক আসামী। মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে চলতি বছরের ৩০ মে’র জুয়া, অস্ত্র বিস্ফেরক মামলার পলাকত আসামী। তাদের বিরুদ্ধে গাবতলী মডেল থানায় এসআই কান্তি কুমার মোদক বাদী ডাকাতির প্রতস্তি ও অস্ত্র আইনে মামলা হয়েছে।
গ্রেপ্তার হওয়া ডাকাত সৈকত গাবতলী উপজেলার নেপালতলী ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক পদে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন।

No comments

Leave a Reply

17 − four =

সর্বশেষ সংবাদ