Menu

সোনাতলার আব্দুল বাছেত দাখিল মাদ্রাসাঃ যেখানে অনিয়মই যেন নিয়ম

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (স্টাফ রিপোর্টার): বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার মধ্য দিঘলকান্দী আব্দুল বাছেত দাখিল মাদ্রাসার অনিয়মই যেন নিয়মে পরিনত হয়েছে। আর এই অনিয়মই নিয়মিত করে চলেছেন ওই মাদ্রাসার সুপার বজলুর রহমান। উধ্বতণ কর্তৃপক্ষকে অনিয়মের বিষয়গুলো জানালেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছেনা। এতে ওই মাদ্রাসার অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জানাগেছে, গত ২ ফেব্রæয়ারী মধ্য দিঘলকান্দী আব্দুল বাছেত দাখিল মাদ্রাসার তফসীল ঘোষনা করা হয়।এতে মনোনয়নপত্র বিতরণ ও জমাদান ৯- ১১ ফেব্রæয়ারী ছিল। সেই মোতাবেক আজ মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষদিন ছিল। নিয়ম অনুযায়ী মাদ্রাসার সুপার বজলুর রহমান মাদ্রাসায় উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও বিকেল পৌনে ৪টায় গিয়ে তাকে মাদ্রাসায় পাওয়া যায়নি। এসময় ৪জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়েছে বলে অফিস সূত্রে জানা যায়।

এদিকে টাকা জমাদানের রশিদ বইয়ে ৪ন প্রার্থীরই টাকা জমাদান দেখা যায়। তবে মাদ্রাসার সুপার বজলুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, একটি মিটিংয়ের জন্য তিনি বগুড়া শহরে অবস্থান করছেন। তিনি বলেন, তার নিকট ৫জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা আছে। তবে কোন কোন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা আছে তা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

অনুসন্ধানে জানাগেছে, মাদ্রাসার সুপার বজলুর রহমান তার পছন্দের প্রার্থীদের অভিভাবক সদস্য করতে গোপনে ভোটার তালিকা করে তফসিল ঘোষনার পর তা মাদ্রাসার নোটিশ বোর্ডে লাগিয়ে ওই নোটিশ বোর্ড মাদ্রাসার একটি কক্ষে সংরক্ষন করেন। বিষয়টি প্রকাশ হওয়ার পর নোটিশ বোর্ড বারান্দায় স্থাপন করা হয়।

এছাড়া তথ্য নিয়ে আরও জানাযায়, মাদ্রাসার সুপার তার পছন্দের অভিভাবক সদস্য না পাওয়ার কারনে তা প্রকাশ করছেনা। ১৩ ফেব্রæয়ারী মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাইয়ের আগেই তিনি তার মনোনীত প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দেখাবেন।

এব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আজিজার রহমান বলেন, মনোনয়নপত্র জমাদানের সময় শেষ হওয়ার পর কোন কোন প্রার্থী জমা দিয়েছে তা বলার কথা। কেনো সুপার বলছেনা তা জেনে আপনাকে জানাচ্ছি।

এরপর বারবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। একই কথা জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বললেও তিনিও আর ফোন রিসিভ করেননি।

No comments

Leave a Reply

10 + ten =

সর্বশেষ সংবাদ