Menu

সোনাতলার ছলুর ঘাটে স্বাধীনতার ৪৯ বছরেও ব্রীজ নির্মান হয়নিঃ আজও আশার দোলায় দুলছে মানুষ

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (বদিউদ-জ্জামান মুকুল, সোনাতলা): সরকার আসে, সরকার যায়। তাদের এমপি-মন্ত্রীরা প্রতিশ্রæতি দিলেও এভাবেই স্বাধীনতা পরবর্তী দীর্ঘ প্রায় ৪৯ বছর অতিবাহিত হলেও সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের ছলুরঘাটে বাঙালী নদীতে ব্রীজ হয়নি। তবে বগুড়া-১ নির্বাচনী আসনের দুইটি উপজেলার প্রায় ৬ লাখ মানুষ আজও ব্রীজ নির্মাণে অপেক্ষার প্রহর গুণছে। তবে হাল ছাড়েনি ওই এলাকার মানুষ।

 

বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১৪/১৫ কিলোমিটার দক্ষিণ পূর্বে অবস্থিত সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের পোড়াপাইকড় এলাকা। ওই এলাকার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে বাঙালী নদী। পোড়াপাইকর খোসকাতলী এলাকায় বাঙালী নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণের দাবি দীর্ঘ দিনের। ওই খেয়াঘাট দিয়ে সোনাতলা ও সারিয়াকান্দি উপজেলার ১৮টি ইউনিয়নের প্রায় ৬ লাখ মানুষ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করেন।

 

এছাড়াও ওই এলাকার প্রায় ৮৫ ভাগ মানুষ কৃষি কাজের উপর নির্ভরশীল। কৃষক তাদের উৎপাদিত কৃষি পণ্য বিক্রির জন্য ওই পথ দিয়ে যাতায়াত করেন। শুষ্ক মৌসুমে কোন রকমে পারাপার হওয়া গেলেও ভর বর্ষা মৌসুমে পথচারীদেরকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হতে হয়। কখনও কখনও খেয়াঘাটের মাঝি ব্যস্ততার কারণে ঘাটে অবস্থান না করার কারণে পথচারীদেরকে ৮/১০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে যাতায়াত করতে হয়।

 

এতে করে একদিকে সময় অপচয় হচ্ছে, অন্যদিকে পথচারীদেরকে দ্বিগুণ অর্থ গুনতে হচ্ছে। এছাড়াও ওই খেয়াঘাটের দু’পাশে ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোমলমতি শিক্ষার্থীদেরকে ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হতে হয়।

 

স্থানীয় লোকজন জানান, স্বাধীনতা পরবর্তী বিভিন্ন সময় ওই খেয়াঘাটে নৌকা ডুবির একাধিক ঘটনা ঘটেছে। আর এতে করে মা ও শিশু সহ প্রায় ১০ ব্যক্তিকে প্রাণ হারাতে হয়েছে।

 

এ বিষয়ে পোড়াপাইকর এলাকার সাজু মিয়া, আবু সাইদ মাষ্টার, লুৎফর রহমান, তারিন আকতার জানান, গত ২/৩ বছর পূর্বে ওই খেয়াঘাটে দুইজন গৃহবধু নৌকা দিয়ে পারাপার হতে গিয়ে নৌকা থেকে পড়ে গিয়ে প্রাণ হারায়।

 

এ বিষয়ে স্থানীয় লোকজন আরও জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান একজন কর্মবীর মানুষ। একমাত্র তিনি পারেন ওই খেয়াঘাটে ব্রীজ নির্মাণের উদ্যোগ নিতে। ইতিমধ্যেই ওই খেয়াঘাটে ব্রীজ নির্মাণের জন্য প্রাথমিক কাজ শুরু হয়েছে বলে উপজেলা প্রকৌশলী অফিস সূত্রে জানা গেছে।

 

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী রাশেদ ইমরান জানান, সোনাতলা উপজেলার বাঙালী নদীর ছলুরঘাট একটি গুরুত্বপূর্ণ খেয়াঘাট। ওই খেয়াঘাটে ব্রীজ নির্মাণ করতে সরকারের প্রায় ৫০ কোটি টাকা ব্যয় হবে। তবে ব্রীজটি নির্মাণের জন্য মাটি পরীক্ষা সহ প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বিশাল অংকের এই অর্থ একনেকে পাশ হলেই ব্রীজ নির্মাণে সংশ্লিষ্ট দপ্তর টেন্ডার আহবান করতে পারবে।

No comments

Leave a Reply

twenty + 8 =

সর্বশেষ সংবাদ