Menu

সোনাতলার পাকুল্লা ইউনিয়নে উন্নয়নমূলক কাজ করে ভোটারদের মনিকোঠায় স্থান পেয়েছেন চেয়ারম্যান শান্ত

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (স্টাফ রিপোটার): আসন্ন বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার পাকুল্লা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ওই ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক জুলফিকার রহমান শান্ত উন্নয়ন ও জনপ্রিয়তায় পিছিয়ে নেই। তাই ওই ইউনিয়নের ভোটাররা আবারও তাকে নৌকার মাঝি হিসেবে দেখতে চান। এলাকার উন্নয়ন ও উৎপাদনের ধারা অব্যাহত রাখতে ভোটাররা বলেছেন, শান্ত ভাই ভালো লোক, জয়ের মালা তারই হোক। গত ৫ বছরে ওই ইউনিয়নে প্রায় ৮০ কোটি টাকার উন্নয়নমূলক কাজ হয়েছে। স্বাধীনতার দীর্ঘ প্রায় ৪৯ বছর পর গত ৫ বছরে চেয়ারম্যান জুলফিকার রহমান শান্ত’র সবচেয়ে বেশি উন্নয়নমূলক কাজ করে ভোটারদের মনিকোঠায় স্থান দখল করে নিতে পেরেছেন। দলের নীতি নির্ধারক মহল তাকে দলীয় মনোনয়ন দিলে তিনি বিপুল ভোটে আবারও ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন বলে ভোটাররা জানিয়েছেন।
তিনি বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার পাকুল্লা ইউনিয়নের এক মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তার বাবা মৃত মোকলেছার রহমান মাষ্টার ও বড় ভাই জাকির মাহমুদ (তিনিও স্কুল শিক্ষক)।
গতকাল সোমবার সরজমিনে পাকুল্লা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ও ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পাকুল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুলফিকার রহমান শান্ত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর গত প্রায় ৫ বছরে তার ইউনিয়নের রাস্তাঘাট, ব্রীজ কালভাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন করে ভোটারদের মনিকোঠায় স্থান দখল করে নিয়েছেন। রাক্ষুসী যমুনা ও বাঙালী নদীর মধ্যবর্তী ইউনিয়ন পাকুল্লা। ওই ইউনিয়নের প্রায় ৮৫ ভাগ মানুষ সরাসরি কৃষি কাজের সাথে জড়িত। প্রকৃতির সাথে লড়াই সংগ্রাম করে টিকে থাকাই তাদের যেন দৈনন্দিন চ্যালেঞ্জ। তিনি তার ইউনিয়নের শতশত নারী পুরুষকে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধি ভাতার আওতায় এনে অভাবী সংসারে সুখ স্বাচ্ছন্দ ফিরে এনে দিয়েছেন। এমনকি চরাঞ্চলে বসবাসকারী দরিদ্র মানুষদের পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের আওতাধীন পল্লী উন্নয়ন একাডেমি কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন (খওচ) প্রকল্পের আওতায় এনে চরের মানুষের আত্মসামাজিক উন্নয়নে বলিষ্ট ভুমিকা রেখেছেন। চরের দরিদ্র মানুষের মাঝে গরু-ছাগল দিয়ে তাদেরকে স্বাবলম্বী করে তুলেছেন।
তিনি নির্বাচিত হলে পাকুল্লা ইউনিয়নের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করবেন। মাদক, জুয়া মুক্ত এলাকা গড়ার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করবেন। পাশাপাশি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে আদিষ্ট হয়ে এবং প্রয়াত সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের স্বপ্নের পাকুল্লা ইউনিয়ন গড়তে তার সহধর্মীনি সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নান এমপি’র পরামর্শক্রমে আধুনিক ডিজিটাল ইউনিয়ন গড়ে তুলবেন। নদীভাঙনরোধে পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

No comments

Leave a Reply

four × 3 =

সর্বশেষ সংবাদ