Menu

সোনাতলার ভেলুরপাড়া ষ্টেশনে যাত্রী বিশ্রামাগার ৩০ বছর আগে নির্মাণ কাজ শুরু হলেও আজও শেষ হয়নি!

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (বদিউদ-জ্জামান মুকুল, সোনাতলা): বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার ভেলুরপাড়া রেলওয়ে ষ্টেশনে দীর্ঘ প্রায় ৩০ বছর পূর্বে যাত্রী বিশ্রামাগারের নির্মাণ কাজ শুরু হলেও শেষ হয়নি আজও। তবে এলাকায় জনশ্রæতি রয়েছে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার কাজ শেষ না করেই ফাইনাল বিল তুলে নিয়ে লাপাত্তা হয়েছে।

বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার ভেলুরপাড়া রেলষ্টেশনটি একটি জনগুরুত্বপূর্ণ রেলষ্টেশন। ওই ষ্টেশন থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ ট্রেন যোগে দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করে। এছাড়াও ওই এলাকা সহ আশপাশের প্রায় ৮৫ ভাগ মানুষ কৃষি কাজের সাথে জড়িত।

ফলে কৃষকদের উৎপাদিত বিভিন্ন ধরনের কৃষি পণ্য প্রতিনিয়ত ট্রেনযোগে রাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে রপ্তানি করা হয়। ওই ষ্টেশন থেকে এক সময় সরকার প্রতিমাসে লাখ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় করলেও জনবল সংকটের কারণে সরকার সেই মোটা অংকের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

১৯৮৯ সালে ষ্টেশনটির গুরুত্ব বিবেচনা করে রেল বিভাগ প্রায় ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে ওই ষ্টেশনে যাত্রীদের জন্য যাত্রী বিশ্রামাগার নির্মাণের জন্য টেন্ডার আহবান করে। পরে লটারির মাধ্যমে ঠিকাদার নিযুক্ত হয় এবং কাজ শুরু করেন। ওই বিশ্রামাগারের নির্মাণ কাজ প্রায় ৮৫ ভাগ শেষ হওয়ার পর অজ্ঞাত কারণে নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে যায়।

ভবনটির ছাদ ঢালাই সহ গাথুনি শেষ করেন সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার। এরপর ভবনটির প্লাস্টার, দরজা জানালা ও রং না করেই উর্ধতন কর্তৃপক্ষদের ম্যানেজ করে ফাইনাল বিল নিয়ে উধায় হয়ে যায়। সেই থেকে আজ অবধি ওই বিশ্রাগামারে কাজ শেষ হয়নি।

এ বিষয়ে রেল বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর মৌখিক ও লিখিত ভাবে অবগত করেও কোন ফল হয়নি বলে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান।

এ বিষয়ে স্থানীয় হামিদুল ইসলাম, এনামুল হক, পেস্তা মিয়া জানান, ১৯৮৯ সালে সংশ্লিষ্ট ষ্টেশনে যাত্রী বিশ্রামাগার নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এরপর ঠিকাদার কাজটি শেষ না করেই লাপাত্তা হয়ে যায়। তবে ওই এলাকায় জনশ্রæতি রয়েছে কাজটি শেষ না করলেও ঠিকাদার ফাইনাল বিল উত্তোলন করার অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে ভেলুরপাড়া রেলষ্টেশনে দীর্ঘ ৩ বছর যাবত ধরে কোন ষ্টেশন মাষ্টার ও কর্মচারী না থাকায় সিগন্যাল ওঠা নামা করে না। যেকোন সময় ওই ষ্টেশনে বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ওই ষ্টেশনে একজন গেইট ম্যান ও একজন পয়েন্স ম্যান রয়েছে। দীর্ঘদিন যাবত ওই ষ্টেশনে ষ্টেশন মাষ্টার না থাকায় সরকার মোটা অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে।

No comments

Leave a Reply

17 + 16 =

সর্বশেষ সংবাদ