Menu

সোনাতলার হুয়াকুয়া-হরিখালী সড়কে খানাখন্দকঃ চলাচল করতে গিয়ে সুস্থরা অসুস্থ হয়ে পড়ছে

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (স্টাফ রিপোর্টার): বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার জনগুরুত্বপূর্ণ হুয়াকুয়া-হরিখালী সড়ক এখন খানা খন্দকে পরিনত। ওই সড়ক দিয়ে যাত্রীবাহী পরিবহনে যাতায়াত করতে গিয়ে সুস্থরা এখন অসুস্থ হয়ে পড়ছে। এছাড়াও পণ্য পরিবহন প্রতিনিয়ত দূর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছে।
বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার জনগুরুত্বপূর্ণ বন্দর হরিখালী বাজার থেকে হুয়াকুয়া বটতলা পর্যন্ত সড়কের দূরত্ব মাত্র ৭ কিলোমিটার। দীর্ঘদিন ওই সড়কটি সংষ্কার না করায় পুরো সড়কটি এখন খানা খন্দকে পরিনত হয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতে ওই সড়কের কোথাও কোথাও পুকুরে পরিনত হয়। ফলে যাত্রী পরিবহনে চলাচল করতে গিয়ে সুস্থরা অসুস্থ হয়ে পড়ছে। এমনকি পণ্য পরিবহনগুলো দূর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছে।
জনগুরুত্বপূর্ণ ওই সড়ক দিয়ে সোনাতলা, সারিয়াকান্দি, গাবতলী ও সাঘাটা উপজেলার হাজার হাজার পথচারীর পাশাপাশি স্কুল-কলেজ গামী শিক্ষার্থীরা চলাচল করতে গিয়ে দূর্ভোগের স্বীকার হতে হচ্চে। এছাড়াও ২০ মিনিটের সড়ক অতিক্রম করতে প্রায় ঘন্টাকাল সময় ব্যয় হচ্ছে। পথচারীদের একদিকে সময় অপচয় হচ্ছে অন্যদিকে দ্বিগুন ভাড়া গুনতে হয়।
এ বিষয়ে স্থানীয় রিকশা, অটোরিকশা, ভ্যান ও সিএনজি মালিক সমিতির সভাপতি লিটন মিয়া জানান, ওই পথ দিয়ে যাত্রীবাহী পরিবহনগুলো চলতে গিয়ে প্রতিনিয়ত বিকল হচ্ছে। এছাড়াও সময় বেশি লাগায় জ্বালানী খরচ দ্বিগুন হচ্ছে।
এ বিষয়ে স্থানীয় মধুপুর ইউপি চেয়ারম্যান অসীম কুমার জৈন নতুন ও পাকুল্লা ইউপি চেয়ারম্যান জুলফিকার রহমান শান্ত জানান, এটি একটি জনগুরুত্বপূর্ণ সড়ক। সড়কটি বিগত কয়েক বছর পূর্বে সংস্কার করা হলেও রাস্তার দু’পাশে বসতবাড়ি থাকায় বর্ষা মৌসুমে বাড়ির পানি রাস্তার উপর দিয়ে অতিক্রম করায় খুব অল্প সময়ে রাস্তাটি নষ্ট হয়ে যায়।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী মোখলেছুর রহমান জানান, এই রাস্তাটি আরসিআইপি (বিদেশী দাতা সংস্থা) প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বরাদ্দ অনুমোদন এলেই রাস্তাটি সংষ্কার (কার্পেটিং করা হবে)।

No comments

Leave a Reply

1 × one =

সর্বশেষ সংবাদ