Menu

সোনাতলায় একটি ব্রীজ দেবে গেছেঃ ভেঙ্গে নিভে যেতে পারে পথচারীদের জীবনের আলো

বদিউদ-জ্জামান মুকুল সোনাতলাঃ বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার ভেলুরপাড়া-সৈয়দ আহম্মদ কলেজ সড়কের লোহাগাড়া খালের উপর অবস্থিত ব্রীজটির একাংশ দেবে গেছে। ফলে জনগুরুত্বপূর্ণ ওই সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী পথচারীরা যেকোন সময় দূর্ঘটনার স্বীকার হতে পারে। নিভে যেতে পারে জীবনের আলো।
বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৯/১০ কিলোমিটার দক্ষিণে ভেলুরপাড়া-সৈয়দ আহম্মদ কলেজ ষ্টেশন সড়কের লোহাগাড়া ব্রীজের উত্তর পার্শ্বের অংশ দেবে গেছে। ফলে ঝুঁকিপূর্ণ ব্রীজের উপর দিয়ে প্রতিদিন শতশত পথচারী ও বিভিন্ন ধরনের যানবাহন ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে। যেকোন সময় ব্রীজটি ধ্বসে পড়ে বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশংকা করা হচ্ছে। এমনকি ওই ব্রীজের উপর দিয়ে পণ্যবাহী গাড়ী, রড, সিমেন্ট, পাথর, গাছের গুড়ি ও বালুবাহী ট্রাক অবাধে যাতায়াত করছে। এছাড়াও কৃষক তাদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য ওই ব্রীজের উপর দিয়ে উপজেলার বিভিন্ন হাটে বাজারে নিয়ে যায়। এছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণির ও পেশার মানুষ যাতায়াত করেন।
এ বিষয়ে স্থানীয় লোকজন জানান, গত প্রায় দুই বছর পূর্বে অতিরিক্ত বর্ষন ও বন্যায় ব্রীজের সংযোগ সড়ক ভেঙ্গে যাওয়ার পাশাপাশি ব্রীজের উত্তর পার্শ্বের অর্ধেক অংশ দেবে যায়। এতে করে ব্রীজটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে।
এ বিষয়ে জোড়গাছা গ্রামের প্রভাষক রফিকুল ইসলাম মতিন, লোহাগাড়া গ্রামের কামাল হোসেন মাষ্টার, মূলবাড়ী গ্রামের কেরামত আলী মাষ্টার, এম রহমান সাগর, সুইটি বেগম, দিঘলকান্দী আব্দুর রাজ্জাক লটকারু, আব্দুল লতিফ মেম্বার, সাংবাদিক মামুনুর রশিদ মামুন জানান, ওই ব্রীজের উপর দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে মনে হয় কখন যেন ব্রীজটি ভেঙ্গে জীবন প্রদীপ নিভে যায়।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী রাশেদ ইমরানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সোনাতলা উপজেলার সুখদহ নদীর উপর বুড়া মেলা, লোহাগাড়া খালের উপর ব্রীজ সহ তিনটি ব্রীজের মাটি পরীক্ষার কাজ শেষ হয়েছে। এখন ডিজাইন পর্যায়ে রয়েছে। ডিজাইনের কাজ শেষ হলেই সংশ্লিষ্ট বিভাগ নতুন করে ব্রীজ নির্মাণের টেন্ডার আহবান করবে।

No comments

Leave a Reply

4 × 1 =

সর্বশেষ সংবাদ