Menu

সোনাতলায় কলেজ ছাত্র রবিউল হত্যার ১৮ দিনেও কোন রহস্য উদঘাটন হয়নি

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (সোনাতলা সংবাদদাতা): বগুড়ার সোনাতলার মেধাবী কলেজ ছাত্র রবিউল হত্যার ১৮ দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ প্রশাসন এ ঘটনার কোন রহস্য উদঘাটন হয়নি। ফলে রবিউল পরিবার দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় লোকজন সূত্রে জানা গেছে, বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার দিগদাইড় গ্রামের এমদাদুল হকের স্ত্রী হামিদা বেগম ও ছেলে রবিউল ইসলাম (১৮) দীর্ঘ প্রায় ২/৩ বছর যাবত ঢাকায় গার্মেন্টস কর্মী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

সেখানে অবস্থানের এক পর্যায়ে গত ৩০ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ৯টার সময় মা ও ছেলে গার্মেন্টস এর দায়িত্ব পালন শেষে গাজিপুর জেলার কাশিমপুর উপজেলার সবুজ কলন এলাকায় বাসায় ফিরে আসে।

এরপর মা ও ছেলে রাতের খাবার শেষে নিজ রুমে টিভি দেখছিল। এমন সময় ছেলে রবিউল ইসলাম তার মাকে অবগত করে রুমের বাহিরে চলে যায়। তার মা হামিদা বেগম রুমে টিভি দেখার এক পর্যায়ে ঘুমিয়ে পড়ে।

এরপর রাত ১২টায় ঘুম থেকে জেগে ঘরের দরজা খোলা এবং ঘরে ছেলেকে দেখতে না পেয়ে বাসার বাহিরে খোঁজাখুজির জন্য বেরিয়ে পড়ে। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে তার মা হামিদা বেগম পার্শ্ববর্তী একটি অটো গ্যারেজে তার ছেলের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়।

এ বিষয়ে কাশিমপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়রী করা হয়েছে।

এ বিষয়ে রবিউলের মা হামিদা বেগম জানান, ছেলের মৃত্যুর ১৮ দিন অতিবাহিত হয়ে গেল। পুলিশ প্রশাসন কোন রহস্য খুজে পায়নি। তিনি আরও জানান, ছেলের মৃত্যুর সত্যতা ঘটনা উদযাটনের জন্য পুলিশ প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেছেন।

এ বিষয়ে কাশিমপুর থানার একজন এসআই জানান, ওই যুবকের গলায় দড়ি লাগানো ঝুলন্ত লাশ করা হয়েছে। মেডিকেলের রিপোর্ট পাওয়া গেলে লাশটির সত্যতা পাওয়া যাবে।

No comments

Leave a Reply

18 − 3 =

সর্বশেষ সংবাদ