Menu

সোনাতলায় গাছের ডালে ঝুঁলে ছিল ৩ সন্তানের জননীর লাশঃ হত্যা নাকি আত্নহত্যা!

আব্দুর রাজ্জাক, সোনাতলাঃ বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার তেকানীচুকাই নগর ইউনিয়নের বালিয়াডাঙ্গা গ্রামে ৩ সন্তানের জননী ইরেনা বেগমের গলায় রশি দিয়ে রহস‍্যজনক আত্মহত‍্যা করেছে। ইরেনা বেগম বালিয়া ডাঙ্গা গ্রামের আনসার সদস‍্য ছানারুলের স্থী। ৪ আগষ্ট শনিবার দিবাগত রাতে পরিবারের মধ‍্যে ঝগড়া বিবাধের ঘটনায় মধ‍্যেরাতে এ রহস‍্যজনক আত্মহত‍্যার ঘটনা ঘটেছে।
 ৫ আগষ্ট রবিবার সকালে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে লাশটি নামিয়ে সুরতহাল শেষে মর্গে প্রেরণ করেছে। সরে জমিনে গিয়ে জানা যায় ইরেনা বেগমের ছেলে বউয়ের সঙ্গে প্রতিনিয়ত ঝগড়া বিবাদ লেগে থাকত। এবিষয়ে ইরেনা বেগমের ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া ছোট ছেলে লিয়ন জানায় শনিবার দুপুরে তার ভাবি বৃষ্টি বেগমের সাথে তার মায়ের পারিবারিক ভাবে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে বড় ভাই লেমনের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। তর্কাতর্কির এক পর্যায় তার বাবা ছানোয়ার সরকার আসে তিনিও তার মায়ের উপর চড়াও হয়ে উঠে। তাদের ঝগড়া বিবাধ দেখে লিয়নের জেঠা আতোয়ার রহমান তার ভাই, ভাবি, ভাতিজা ভাতিজাবউসহ সকলকে শাসিয়ে সমাধান করে। সন্ধ‍্যায় লিয়ন খাওয়া দাওয়া শেষে খুমিয়ে যায়। রাত ৯ টার দেখতে পায় তার মা বাড়িতে নেই। সবাই মিলে রাত ১টা পর্যন্ত খোজা খুজি করে আবারও ঘুমিয়ে যায়। সকালে জানতে পারে তার মা ইরেনা বেগম বাড়ির পাশে ডোবায় একটি গাছে ঝুলে আছে। একথা শুনে তার বড় ভাই লেমন ও তার স্ত্রী বৃষ্টি বেগম এবং বাবা ছানোয়ার সরকার বাড়ি থেকে কোথায় চলে যায় তা লিয়ন জানেনা। ইরেনা বেগমের বৃদ্ধ শ্বাশুরী জানায় তিনি বেশ কিছুধিন ধরে সোনাতলায় তার মেয়ের বাসায় ছিলেন। তার নাতিরা শনিবার দুপুরে তাকে ফোনে জানান বাড়িতে ঝগড়া বাজছে তুমি বাড়িতে আসো। খবর পেয়ে তিনি বালিয়া ডাঙ্গায় যান। এবং তার বড় মেয়ে সেখানে আসে সবার উপস্থিতিতে ঝগড়া বিবাদ মিমাংসা করে চলে যায়। পরে কি হয়েছে তা জানেন না। এদিকে এলাকাবাসির জনমনে প্রশ্ন কিভাবে গাছের এত উচুতে শাড়ি পরে উঠে গলায় দড়ি দিয়েছে এটা হতেই পারেনা হত‍্যা ছাড়া কিছুই নয়। সকাল থেকে উৎসুক জনতা এ আত্মহত‍্যা দেখার জন‍্য ভির জমায়। এমনকি নৌকা নিয়েও নদী পথে লোকজন এক নজর দেখার জন‍্য আসে।
এবিষয়ে থানা অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম রেজা জানান ভিকটিমের ভাই হেলাল বাদী হয়ে থানায় একটি অপমৃত মামলা দায়ের করেছে। যদি আত্ম হত‍্যা করেছে মৃত‍্যূর সটিক কারণ নির্নয়নের জন‍্য বগুড়া শহিদ জিয়া মেডিকেলে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

No comments

Leave a Reply

sixteen − 8 =

সর্বশেষ সংবাদ