Menu

সোনাতলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠনে অনিয়মের অভিযোগ

ফয়সাল আহম্মেদ, সোনাতলাঃ বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার বালুয়া ইউনিয়নের ধর্মকুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠন নিয়ে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। অপরদিকে উক্ত অভিযোগের তদন্তশেষে উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার কর্তৃক মিথ্যা রিপোর্ট দাখিলের পাল্টা অভিযোগ তুলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা প্রাথমিক ও গনশিক্ষা কমিটি, জেলা শিক্ষা অফিসার এবং শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বরাবরে পুনঃতদন্তের আবেদন করা হয়েছে।
জানাযায়, উপজেলার বালুয়া ইউনিয়নের ধর্মকুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠনের লক্ষে উপজেলা শিক্ষা অফিসের তফসিল অনুযায়ী গত ৩০/১১/২০২০ ইং তারিখে খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ, ০২/১২/২০২০ ইং তারিখে চুড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ, ০৩/১২/২০২০ইং হইতে ০৮/১২/২০২০ইং পর‌্যন্ত মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ ও জমা, ০৯/১২/২০২০ইং মনোনয়ন পত্র যাচাই বাছাই ও চুড়ান্ত ঘোষনা, ১১/১২/২০২০ইং মনোনয়ন প্রত্যাহার, ১২/১২/২০২০ইং প্রতিক বরাদ্দ, ২২/১২/২০২০ ইং তারিখে সকাল ০৯ টা হইতে বিকেল ০৪টা পর‌্যন্ত ভোট গ্রহন ও ফলাফল ঘোষনা করা হবে। এতে সরকারি নিতীমালা অনুসারে নতুন পুর্নাঙ্গ ম্যানেজিং কমিটিতে ০২ জন পুরুষ অভিভাবক ও ০২ জন মহিলা অভিভাবক অংশগ্রহন করবে। সেইসাথে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহের জন্য ১০০০টাকা জমা ও তা অফেরতযোগ্য বলেও তফসিলে বর্নিত রয়েছে।
বিদ্যালয় সুত্রে জানাযায়, উল্ল্যেখিত তফসিল অনুযায়ী নির্ধারিত তারিখে ও সঠিক সময়ের মধ্যে চারজন প্রার্থী মনোনয়ন উত্তোলন করেন। তারা হলেন, পারভিন বেগম, সুফিয়া বেগম, গোলাম মোক্তাদী ও এরশাদুজ্জামান সোহাগ। এদিকে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সকল সহকারি শিক্ষকদের উপস্থিতিতে উক্ত তফসিলের নিয়ম অনুযায়ী কোন প্রতিদন্দি না থাকায় উল্ল্যেখিত ব্যক্তিরা বিনা প্রতিদন্দিতায় নির্বাচিত হন।
অপরদিকে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কর্তৃক উক্ত ম্যানেজিং কমিটি গঠনে অনিয়মের কথা উল্ল্যেখ করে ধর্মকুল গ্রামের মোঃ আজিজার রহমানের ছেলে ও বালুয়া ইউনিয়নের বর্তমান মেম্বার আসাদুজ্জামান সোহেল সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগে তিনি উল্ল্যেখ করেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও তার সহকারি শিক্ষকেরা যোগসাজস করে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠনের বিষয়টি কোন রকমের প্রচার/প্রচারনা ছারাই কাউকে না জানিয়ে গোপনে তাদের মনগড়া প্রার্থিদের নির্বাচিত ঘোষনা করেছেন। সেইসাথে বিষয়টি তদন্তের আবেদন জানান তিনি।
এদিকে উক্ত অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা শিক্ষা অফিসার রবীন্দ্র নাথ সাহা একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। এরপর তার নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার এএসএম শফিউল ইসলাম গত ৯/০২/২০২১ ইং তারিখে স্বরজমিনে বিদ্যালয়ে ও এলাকায় গিয়ে বিষয়টি তদন্ত করেন এবং তদন্ত শেষে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবরে রিপোর্ট দাখিল করেন।
এদিকে উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার এএসএম শফিউল ইসলাম কর্তৃক দাখিলকৃত তদন্ত রিপোর্ট মিথ্যা মুলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে গত ১৫/০২/২০২১ইং তারিখে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা প্রাথমিক ও গনশিক্ষা কমিটি, জেলা শিক্ষা অফিসার এবং শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বরাবরে পুনঃতদন্তের জন্য একটি আবেদন করা হয়েছে বলে জানাযায়।
এদিকে উপরোক্ত সকল বিষয় সম্পর্কে জানতে স্বরজমিনে বিদ্যালয়ে গেলে শিক্ষকগন জানান, উপজেলা শিক্ষা অফিসের তফসিল অনুযায়ী উক্ত বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠনের নির্বাচনের সকল কার‌্যক্রম নিয়মমাফিক করা হয়েছে। সেইসাথে তফসিলের কাগজ বিদ্যালয়ে আসা মাত্রই তার ফটোকপি এলাকার বিভিন্নস্থানে পোষ্টারিং ও এলাকার মসজিদগুলোতে মাইকিংয়ের মাধ্যমে সর্ব জনসাধারনকে জানানো হয়েছে এবং নির্ধারিত তারিখের মধ্যে সকল কার‌্যক্রম শেষে যাবতীয় তথ্যাবলী নিয়ম অনুযায়ী যথাসময়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসে পাঠানো হয়েছে। তাই তাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পুর্নই মিথ্যা ও বানোয়াট বলেও জানান তারা।
অপরদিকে তদন্তের বিষয়ে জানতে চাইলে বিদ্যালয়ের শিক্ষকগন জানান, তাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অভিযোগের বিষয়টি তদন্তের জন্য উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার এএসএম শফিউল ইসলাম গত ৯/০২/২০২১ ইং তারিখে বিদ্যালয়ে গেলে তারা এলাকার লোকজনকে অবগত করেন। এসময় বহুসংখ্যক লোকজন উপস্থিত হলে তাদের অধিকাংশ লোকজনই তফসিলের বিষয়ে জানতেন বলে জানান।
তারা আরো জানান, আসাদুজ্জামান সোহেলের অভিযোগে যে ৬৪ জন ব্যক্তির নাম উল্ল্যেখ ছিলো উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার এএসএম শফিউল ইসলাম কর্তৃক বিষয়টি তদন্তের সময় উক্তস্থানে তাদের মধ্যে ২১ জন ব্যক্তি উপস্থিত ছিলেন। এসময় ঐ ২১ জন ব্যাক্তি কর্মকর্তাকে বলেন অভিযোগের বিষয়ে আমরা কিছুই জানিনা, অন্যকথা বলে আমাদের নিকট থেকে একটি কাগজে সাক্ষর নেয়া হয়েছে। তবে তফসিল সম্পর্কে সকলেই অবগত ছিলেন বলেও জানিয়েছেন তারা।
এবিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার রবীন্দ্র নাথ সাহা’র সাথে কথা বললে তিনি উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার এএসএম শফিউল ইসলামের নামে দায়েরকৃত অভিযোগের কথা স্বিকার করে বলেন এ সম্পর্কে এখনো কোন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। তবে অভিযোগের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে। সেইসাথে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মতামতের ভিত্তিতে পুনঃতদন্তের মাধ্যমে এর চুড়ান্ত সমাধান আনা হবে বলেও জানান তিনি।

No comments

Leave a Reply

one × four =

সর্বশেষ সংবাদ