Menu

সোনাতলায় বন্যার্তদের মাঝে ডাকাত আতংকঃ রাত জেগে গরু-ছাগল পাহারা

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (বদিউদ-জ্জামান মুকুল, সোনাতলা): বগুড়ার সোনাতলার সীমান্তবর্তী গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার ডাকাত দল ঈদ-উল-আযহাকে সামনে রেখে বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার বিভিন্ন চরাঞ্চলে গরু-ছাগল ডাকাতি করতে প্রতিদিন রাতে হানা দিচ্ছে। ওই উপজেলার চরাঞ্চলে বসবাসকারী বন্যার্তদের মধ্যে এখন ডাকাত আতংক বিরাজ করছে। ডাকাত থেকে রক্ষা পেতে রাত জেগে তারা গ্রাম পাহারা দিচ্ছে।
বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে গেছে রাক্ষুসী যমুনা ও বাঙালী নদী। তেকানীচুকাইনগর ইউনিয়নের চর সরলিয়া, মহব্বতেরপাড়া, জন্তিয়ারপাড়া, ভিকনেরপাড়া, খাবুলিয়া, পাকুল্লা ইউনিয়নের পূর্বসুজাইতপুর, মির্জাপুর, রাধাকান্তপুর, খাটিয়ামারী চরের বাসিন্দাদের মধ্যে এখন ডাকাত আতংক কাজ করছে। এছাড়াও যমুনা নদীর তীরবর্তী এলাকাগুলোর মানুষ সামনে ঈদ-উল-আযহাকে সামনে রেখে তাদের গবাদি পশু গরু ও ছাগল সহ ঘরের মূল্যবান জিনিসপত্র, ফার্নিচার ও স্বর্নালংকার ডাকাতের কবল থেকে রক্ষার জন্য সারারাত জেগে পুরো গ্রাম পালা করে পাহারা দিচ্ছে।
গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে বাঙালী নদী সংলগ্ন উপজেলা হুয়াকুয়া ও পোড়াপাইকড় গ্রামের লোকজন মধ্যরাতে বাঙালী নদীতে শ্যালো মেশিন চালিত একটি মেশিনের শব্দ ও টর্চ লাইটের আলো দেখতে পায়। এ সময় গ্রামবাসী মসজিদের মাইকে ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার দিলে পুরো গ্রামবাসী লাঠিসোডা নিয়ে বাড়ি বাড়ি সজাগ অবস্থায় থাকে। এরপর তারা বিষয়টি থানা পুলিশকে মোবাইল ফোনে অবগত করে।
এ বিষয়ে হুয়াকুয়া গ্রামের আতোয়ার রহমান গেদা, একাব্বর হোসেন, বিপুল মিয়া জানান, ওই রাতে বাঙালী নদীর মধ্যে শ্যালো চালিত ৩/৪টি মেশিনের নৌকা দেখতে পেয়ে গ্রামবাসী ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার দেয়।
এ বিষয়ে স্থানীয় লোকজন আরও জানান, গত বছরের বন্যায় চরাঞ্চল থেকে বেশ কয়েকজন কৃষকের গরু ডাকাতি করে নিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে সোনাতলা থানার ওসি মোঃ আব্দুল্লাহ আল মাসউদ চৌধুরী জানান, এ বিষয়ে পুলিশ সচেতন রয়েছে। প্রতি রাতে পুলিশ নৌকা যোগে বিভিন্ন এলাকায় টহল দিচ্ছে।
উল্লেখ্য, পার্শ্ববর্তী গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা থেকে প্রতিবছর বন্যায় ডাকাত দল সোনাতলা ও সারিয়াকান্দির বিভিন্ন এলাকায় হানা দিয়ে গবাদি পশু গরু-ছাগল, টাকা পয়সা,স্বর্নালংকার ও ঘরের মূল্যবান আসবাবপত্র লুট করে নিয়ে যায়।

No comments

Leave a Reply

twelve − 10 =

সর্বশেষ সংবাদ