Menu

সোনাতলায় বন্যার পানিতে ২ ইউনিয়নের ১০ গ্রামের ৫ হাজার মানুষ পানিবন্দি

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (স্টাফ রিপোটার): বগুড়ার সোনাতলায় দুই ইউনিয়নের ১০ গ্রামের প্রায় ৫ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তবে এখনও সরকারী ভাবে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ শুরু করা হয়নি। ফলে পানিবন্দি কর্মহীন মানুষগুলো পরিবার পরিজন নিয়ে অভাব অনটনের মধ্যে দিনাতিপাত করছে।
বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার তেকানীচুকাইনগর ইউনিয়নের চর চুকাইনগর ও চরমহনপুর আশ্রয়ন প্রকল্পে অস্থায়ী ভাবে বসবাসকারী ২শ পরিবার চর সরলিয়া গুচ্ছগ্রামে ২শ’ পরিবার চর সরলিয়ায় স্থায়ী বসবাসকারী ২শ’ পরিবার, চর চুকাইনগর ও চরমহনপুরে স্থায়ী বসবাসকারী ৫শ পরিবার সহ চর ভিকনেরপাড়া ও ভিকনেরপাড়া এলাকায় আরও ৩শ’ পরিবার সহ ওই ইউনিয়নের প্রায় ২ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়াও পাকুল্লা ইউনিয়নের পূর্ব সুজাইতপুর, বালুয়াপাড়া, খাটিয়ামারী, রাধাকান্তপুর, আমতলী, শ্যাওরাপাড়া, মির্জাপুর এলাকার প্রায় ৮-৯শ’ পরিবারের আরও প্রায় ৫ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এদিকে বন্যার পানির নিচে ডুবে গেছে পাট ও আউশ আমন ধান সহ বীজতলা, শাকসবজি ফসল।
এ বিষয়ে তেকানীচুকাইনগর ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শামছুল হক মন্ডল জানান, চলতি বছরের বন্যায় তার ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি আশ্রয়ন প্রকল্প ও গুচ্ছগ্রামে অস্থায়ী ভাবে বসবাসকারী মানুষ সহ ইউনিয়নের প্রায় ৭/৮টি গ্রামের প্রায় ৩ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।
এ বিষয়ে পাকুল্লা ইউপি চেয়ারম্যান জুলফিকার রহমান জানান, আমরা বন্যা মোকাবেলা করার জন্য সর্বদা প্রস্তুুত রয়েছি।
এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ আহমেদ জানান, গতকাল শনিবার যমুনা নদীতে বিপদ সীমার ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়েছে। এখন পর্যন্ত উপজেলার ২৫ হেক্টর জমির ফসল বন্যার পানিতে নিমর্জিত হয়েছে।

No comments

Leave a Reply

one × one =

সর্বশেষ সংবাদ