Menu

সোনাতলায় বন্যায় দেড় হাজার পরিবার পানিবন্দীঃ আশ্রয় নিচ্ছে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাাঁধে

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (সোনাতলা প্রতিনিধি): উজান থেকে ধেঁয়ে আসা পানিতে বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার পাকুল্লা, তেকানী চুকাইনগর ও সদর ইউনিয়নের প্রায় আট দশটি গ্রামের দেড় হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে ৷

সরেজমিনে এলাকা ঘুরে জানা যায়, গত কদিন ধরে বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে যমুনার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এতে পানিবন্দী হয়ে পড়েছে প্রায় দেড় হাজার পরিবার। অনেকে বাড়ি-ঘড় ছেড়ে তাদের গৃহপালিত গরু, ছাগল, হাস, মুরগী নিয়ে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাাঁধে আশ্রয় নিয়েছে।

বন্যা দূর্গত এলাকার শামিম ইসলাম,খাইরুল ইসলাম,তবিবর রহমান জানান, গত কয়েকদিন আগে থেকে পানি বৃদ্ধিপাতে তাদের সহ আশপাশের গ্রামে অনেক বাড়ি ঘরে পানি প্রবেশ করেছে ৷ এতে তাদের বিভিন্ন ধরনের ফসলের ব্যপক ক্ষতি হয়েছে।

পাকুল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুলফিকার রহমান শান্ত বলেন, আমার ইউনিয়নের পাকুল্লা, রাধাঁকান্তপুর, খাটিয়ামাড়ি, মির্জাপুর, পুর্বসুজাইতপুর, বালুয়াপাড়া সহ পাশের ইউনিয়নে কিছু এলাকায় বন্যার পানি প্রবেশ করায় একদিকে যেমন ফসলি জমির ফসল নষ্ট হয়েছে অন্যদিকে বাড়িঘরের ভিতর পানি প্রবেশ করায় মানুষগুলো গবাদি পশু নিয়ে কষ্টে আছে ৷ তিনি আরোও বলেন, প্রতিনিয়ত এলাকার খোঁজখবর সহ ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা উপজেলা প্রশাষনকে দেওয়া হযেছে ৷

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান বলেন, আমরা মিটিং করে জনপ্রতিনিধিদের ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা দিতে বলেছি এবং নগদ দু লক্ষ টাকা ও ৫০ মেট্রিকটন জি আর চাল বরাদ্ধ চেয়েছি ৷

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাছুদ আহম্মেদ বলেন, সদর,পাকুল্লা,তেকানীচুকাইনগর ইউনিয়নে রোপনকৃত পাট ১৭১০হেক্টরের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছে ৩১০ হেক্টর, আমন বা আয়ুশ ধানের ১৪৫০ হেক্টরের মধ্যে ১৭৫ হেক্টর জমি সহ ত্রলাকায় কিছু বিজতলা ও শাকশবজির ক্ষতি হয়েছে ৷

তিনি আরো বলেন আগামিতে উচু স্থানে ৬ বিঘা জমিতে কমিউনিটি বিজতলায় বিজ রোপন করা হবে ত্রবং সেগুলি কৃষকের মাঝে বিতরন করা হবে।

No comments

Leave a Reply

one × 2 =

সর্বশেষ সংবাদ