Menu

সোনাতলায় বন্যা পরিস্থিতি আরও অবনতিঃ দেখা দিয়েছে তিব্র গো-খাদ্যের সংকট

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (বদিউদ-জ্জামান মুকুল, সোনাতলা): বগুড়ার সোনাতলায় নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। বন্যার্তদের পাশাপাশি ওই উপজেলার দুইটি ইউনিয়নে গো খাদ্যের চরম সংকট দেখা দিয়েছে। গরুর খাদ্য সংগ্রহ করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে গরু মালিকরা। অপর দিকে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান সামগ্রী ও শুকনা খাবার বিতরণ করা হয়েছে।
গতকাল সরজমিনে উপজেলার তেকানীচুকাইনগর ও পাকুল্লা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে বানভাসীদের দুঃখ দুর্দশা চোখে পড়ে। ওই দুটি ইউনিয়নের প্রায় ৫/৬শ মানুষ বাড়িঘর ছেড়ে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে এসে আশ্রয় নিয়েছে। আবার কিছু কিছু এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, বন্যার পানির মধ্যে বাড়িঘরে অবস্থান করছে লোকজন। ঘরের তীরের সাথে শয়ন ঘরের চৌকি কিংবা খাট উঁচু করে বেধে সেখানে পরিবার পরিজন নিয়ে অবস্থান করছে। ঘরের মধ্যেই চুলায় রান্নাবান্না করতে দেখা গেছে গৃহবধুদেরকে।
এ ব্যাপারে খাবুলিয়া এলাকার আব্দুল হাই মাষ্টার জানান, তেকানীচুকাইনগর ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার প্রায় ৫০/৬০ ঘর লোকজন নদীভাঙনের কারণে ঘরবাড়ি নিয়ে পার্শ্ববর্তী সাঘাটা ও শিবগঞ্জ উপজেলায় স্থায়ী ভাবে বসবাস শুরু করে দিয়েছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মাসুদ আহমেদ জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত পাট ৭৮০ হেক্টর, আউশ ধান ৭৬০ হেক্টর, বীজতলা ১৫ হেক্টর, শাকসবজি ১৫ হেক্টর ও মরিচ ২ হেক্টর বন্যার পানিতে ডুবে গেছে।
এ দিকে হুহু করে বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সোনাতলার নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। সেই সাথে বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হচ্ছে ঘরবাড়ি।
গতকাল বৃহস্পতিবার সোনাতলা উপজেলার ২টি ইউনিয়নে ৬৬৭ জনকে ১৫ কেজি করে চাল মোট ১০ মেট্রিক টন চাল বন্যার্তদের মাঝে বিতরণ করা হয়। এছাড়াও ৩শ’ প্যাকেট শুকনা খাবার বিতরণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান এড. মিনহাদুজ্জামান লীটন। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের নির্দেশে সার্বক্ষনিক বন্যার্তদের পাশে ত্রান সামগ্রী নিয়ে রয়েছি। যতদিন বন্যা থাকবে ততদিন ত্রান সামগ্রী অব্যাহত থাকবে।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শফিকুর আলম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ জিয়াউর রহমান, তেকানী ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শামছুক হক, পাকুল্লা ইউপি চেয়ারম্যান জুলফিকার রহমান শান্ত, মধুপুর ইউপি চেয়ারম্যান অসীম কুমার জৈন নতুন প্রমুখ।

No comments

Leave a Reply

4 × 5 =

সর্বশেষ সংবাদ