Menu

সোনাতলায় বিনোদন পার্ক নেইঃ তরুন প্রজন্মদেরকে মাদকের ছোবল থেকে রক্ষার দাবি

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (বদিউদ-জ্জামান মুকুল): বগুড়ার সোনাতলায় বিনোদন পাক নেই। স্থানীয়রা তরুন প্রজন্মদেরকে মাদকের ছোবল থেকে রক্ষা করার জন্য ওই উপজেলায় বিনোদন পার্ক স্থাপনের দাবি তুলেছে।
বগুড়ার ১২টি উপজেলার মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য, কৃষি ও শিক্ষা দীক্ষায় অন্যসব উপজেলার শীর্ষে রয়েছে সোনাতলা উপজেলা। ওই উপজেলায় ১টি পৌরসভা ও ৭টি ইউনিয়নে প্রায় পোনে দুই লাখ মানুষের বসবাস। ওই উপজেলায় রয়েছে ১৬৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২৩টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৯টি মাদ্রাসা, সাধারণ কলেজ ৪টি, ৬টি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৫০ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। বর্তমান প্রজন্মের শিক্ষার্থীরা খেলার মাঠ ও বিনোদন পার্ক ছেড়ে এখন ঘরমুখী। তারা ঘরে বসে (ইনডোর) কম্পিউটারের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের বিনোদন ও খেলাধুলায় সময় অতিবাহিত করে। এতে করে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা শারীরিক কসরত করতে পারছে না। ফলে তাদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে বাধা গ্রস্থ হচ্ছে। বিপথে যাচ্ছে অনেক স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা ব্যবসা-বাণিজ্যে ও শিক্ষা দীক্ষায় পিছিয়ে না থাকলেও ওই উপজেলায় সরকারী ভাবে শিশুপার্ক না থাকায় শিক্ষার্থীরা বিনোদনের সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে অনেক শিক্ষার্থীরা অসৎ বন্ধু বান্ধবদের সাথে অসামাজিক কার্যকলাপ সহ বিভিন্ন অপরাধ কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ছে। এক সময় বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার ক্রীড়াঙ্গন ছিল জমজমাট। শুধু জেলায় নয় রাজশাহী বিভাগ সহ রাজধানীর বিভিন্ন মাঠে বল গড়িয়েছে ওই উপজেলার দামাল ছেলেরা। এক সময় সেই ক্রীড়াঙ্গন ঝিমিয়ে পড়লে স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান সোনাতলায় নির্মাণ করে স্টেডিয়াম। বর্তমানে ওই উপজেলায় স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার সুযোগ সৃষ্টি হলেও নেই শিশুদের জন্য বিনোদনের ব্যবস্থা। উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনের সামনে অফিসার কোয়াটার সংলগ্ন শিশুদের জন্য একটি বিনোদন পার্ক থাকলেও তা সংরক্ষিত এলাকায় বসবাসকারী কর্মকর্তাদের ছেলেমেয়েদের জন্য প্রযোজ্য। সবার জন্য উন্মুক্ত নয়।
বগুড়ার সোনাতলার কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বিনোদনের জন্য স্থানীয় শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গ, সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ আজ সোচ্চার।
এ বিষয়ে সোনাতলা উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডঃ মিনহাদুজ্জামান লীটন জানান, শিশুদের জন্য বিনোদন পার্ক স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে। সোনাতলা বিনোদন পার্ক স্থাপন এখন শুধু মাত্র সময়ের ব্যাপার।
এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আজিজার রহমান জানান, সংশ্লিষ্ট উপজেলার বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীর জন্য বিনোদন পার্ক স্থাপন করা হলে শিশুরা ঘরমুখী না হয়ে অবসর সময়ে পার্কমুখী হবে। এতে করে শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের সুযোগ সৃষ্টি হবে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শফিকুর আলম জানান, প্রতিটি ইউনিয়নে একটি করে শিশু পার্ক গড়ে তোলার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দের সাথে সমন্বয় করে পরিকল্পনাটি প্রনয়ন করা হবে। তিনি আরও জানান, শিশুদের বিনোদনের সুব্যবস্থা থাকলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম সুশিক্ষায় শিক্ষিত হওয়ার পাশাপাশি বলিষ্ট দেহের অধিকারী হতে সক্ষম হবে।

No comments

Leave a Reply

twenty − fifteen =

সর্বশেষ সংবাদ