Menu

সোনাতলায় ৩শ’ ফলন্ত পেঁপে গাছ কর্তন করেছে প্রতিপক্ষরাঃ মারপিট আহত ১

সোনাতলা সংবাদ ডটকম (স্টাফ রিপোর্টার): বগুড়ার সোনাতলায় জমিজমা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি মারপিট, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ফলন্ত পেঁপে গাছ কর্তন করা হয়েছে। এ নিয়ে মারপিটে এক ব্যক্তি আহত হয়েছে। এ বিষয়ে ১৯ জনকে আসামী করে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের সোনাকানিয়া গ্রামের মৃত ফজলুল হক মন্ডলের পুত্র ও সোনাকানিয়া দক্ষিণ পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ আব্দুল হালিম পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া ৫৪ শতক জমিতে পেঁপে গাছ লাগায়। ওই জমিটি একই গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের পুত্র শহিদুল ইসলাম দীর্ঘদিন যাবত নিজের কবলা জমি বলে দাবি করে আসছে। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে কয়েক দফা মারপিটের ঘটনা ঘটে। এমনকি এ নিয়ে পাল্টাপাল্টি থানা ও আদালতে প্রায় দুপক্ষের মধ্যে হাফ ডজন মামলা রয়েছে। ইতিমধ্যেই আদালত ওই জমির উপর (টেটাস্ক) জারি করে উভয়পক্ষকে যেতে নিষেধ করে।
বিরোধপূর্ণ ওই জমিতে আব্দুল হালিম মাষ্টার প্রায় ৩ শতাধিক পেঁপে গাছের চারা রোপন করে। এ নিয়ে প্রতিপক্ষ ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এক পর্যায়ে গত ৭ জুলাই ১৯ সকাল আনুমানিক ১১টার সময় প্রতিপক্ষ শহিদুলের লোকজন ওই জমি থেকে পেঁপে গাছ কেটে ফেলে। এ সময় আব্দুল হালিমের ভাই হারুনুর রশিদ (৪৮) বাধা দিলে প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে বেদম মারপিট করে। বর্তমানে সে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।
এ বিষয়ে হারুনুর রশিদ বাদী হয়ে ১৯জনকে আসামী করে আদালতে মামলা দায়ের করে। এ বিষয়ে আব্দুল হালিম মাষ্টার জানান, এছাড়াও ওই জমিতে লাউ, মিষ্টি কুমড়া, ঢেড়স, মরিচ গাছ কেটে ফেলা হয়েছে বলেও তিনি জানান।
এ বিষয়ে সোনাতলা থানার ওসি মোঃ আব্দুল্লাহ মাসউদ চৌধুরী জানান, ওই জমিটি নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। এমনকি দুই পক্ষের পাল্টা পাল্টি হাফ ডজন মামলা রয়েছে।

No comments

Leave a Reply

6 + 1 =

সর্বশেষ সংবাদ